তনু হত্যার বিচারের দাবিতে কম্পিত হলো নীলফামারী


প্রতিবাদী হও, বিবেককে জাগ্রত কর। ফাঁসি ফাঁসি ফাঁসি চাই, তনু হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই। জড়িত যেই হোক, আইনের ঊর্ধ্বে কেউ নয়। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের হাজারো শিক্ষার্থীদের কণ্ঠে এমনই শ্লোগানে শ্লোগানে কম্পিত হলো নীলফামারী শহর। 

কুমিল্লার ভিক্টোরিয়া কলেজের অর্নাসের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ও নাট্য কর্মী সোহাগী জাহান তনুকে ধর্ষণ ও হত্যার প্রতিবাদে এবং জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে নীলফামারীতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও সমাবেশে এমন শ্লোগান উচ্চারিত হয়েছে। বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে জেলা শহরের স্বাধীনতা স্মৃতিঅম্লান চত্বরে দেড়  ঘণ্টাব্যাপী এই মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়াও এই কর্মসূচি শেষে গণজাগরণ মঞ্চের ডাকে সাড়া দিয়ে জেলার ছয় উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে দাঁড়িয়ে মানববন্ধন করেছে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

জেলা নারী উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি ও সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আরিফা সুলতানা লাভলীর আয়োজনে এবং সভাপতিত্বে এই প্রতিবাদী কর্মসূচিতে একাত্মতা প্রকাশ করে জেলা শহরের সকল স্কুল কলেজের শিক্ষক/শিক্ষার্থী, অভিভাবক, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন নারী সংগঠন,সামাজিক সংস্কৃতি সংগঠন, বিভিন্ন ক্লাবের প্রতিনিধিরা এতে অংশ নেন।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুজার রহমান, জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপিকা শামীমা রহমান, আমরা পারি নারী নির্যাতন প্রতিহত কমিটির সভাপতি দৌলতন জাহান ছবি, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ওয়াদুদ রহমান, শিক্ষার্থী শ্রেয়া ঘোষ, নারী সাংবাদিক ইসরাত জাহান পল্লবী, জেলা ফার্টিলাইজার এ্যাসোসিয়সনের সভাপতি আব্দুল ওয়াহেদ সরকার, পল্লী-শ্রীর প্রতিনিধি নীলিমা রানী দাস, জেলা মহিলা বিষয়ক অফিসের সহকারি কর্মকর্তা ফরিদা খানম এনা, সাংস্কৃতিক কর্মী আব্দুল বারী, শিক্ষক সারোয়ার মানিক, জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি কমল সরকার, নারী সংগঠক সেলিনা সাথী, নাজমা আক্তার, রূপালী বেগম ও যুব রেডক্রিসেন্ট টিম লিডার মাসুদ রানা প্রমুখ। 

এ সময় বক্তারা দ্রুত দোষীদের চিহিৃত করে গ্রেফতার ও বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান।
সূত্র : জাগোনিউজ২৪

Post a Comment