দ্বিতীয় দিনেও সোনা মসজিদ স্থলবন্দর দিয়ে পাথর আমদানি বন্ধ


ভারতীয় রফতানিকারকদের নিম্নমানের পাথর সরবরাহ ও মূল্য কমানোর সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করায় চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনা মসজিদ স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রফতানি দ্বিতীয় দিনের মতো বন্ধ রয়েছে। 

রোববার থেকে সকল প্রকার ভারতীয় পাথর আমদানি বন্ধ রাখা হয়। এদিকে, সোমবার সকাল থেকে পাথরবাহী কোনো ট্রাক বন্দরে প্রবেশ করতে দেখা যায়নি।
  
সোনা মসজিদ স্থলবন্দর আমদানি-রফতানিকারক গ্রুপের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সেন্টু আলী জানান, ভারতীয় রফতানিকারকরা নিম্নমানের পাথর সরবরাহ ও দফায় দফায় পাথরের মূল্যবৃদ্ধির কারণে সৃষ্ট সমস্যার ব্যাপারে গত ১০ ও ২১ ফেব্রুয়ারি মহদিপুর এক্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশন ও সোনা মসজিদ আমদানি-রফতানিকারক অ্যাসোসিয়েশন দ্বিতীয় দফা বৈঠকে পরিচ্ছন্ন পাথর সরবরাহ, টনের পরিবর্তে সেফটিতে ওজন এবং প্রতি টন ১৮.৫ ডলারের স্থলে ১৪ ডলারে পাথর দেয়ার ব্যাপারে একমত হন। 

কিন্তু বৈঠকের সিদ্ধান্তগুলো ভারতের মহদিপুর এক্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশন মানবে না বলে গত ২৪ ফেব্রূয়ারি সোনা মসজিদ আমদানিকারক অ্যাসোসিয়েশনকে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেয়। 

সোনা মসজিদ আমদানি-রফতানিকারক অ্যাসোসিয়েশন পুনরায় বার্তা এবং মৌখিকভাবে সমাধানকৃত সিদ্ধান্তগুলো কার্যকরের দাবি জানিয়েও তা বাস্তবায়িত না হওয়ায় রোববার থেকে ভারতীয় পাথর আমদানি বন্ধ রাখা হয়। 

এ ব্যাপারে সোনা মসজিদ স্থলবন্দর আমদানি-রফতানিকারক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব জানান, বন্দরের আমদানি-রফতানিকারক গ্রুপ ও ভারতের রফতানিকারকদের সৃষ্ট সমস্যার জন্য সকাল থেকে পাথরবাহী কোনো ট্রাক বন্দরে প্রবেশ করেনি। 

সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হারুন অর রশিদ জানান, ভারতীয় ব্যবসায়ীরা আমদানি-রফতানি বন্ধ করে দেয়ায় বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। আর এজন্য সোনা মসজিদ স্থলবন্দরে অচলাবস্থা বিরাজ করছে বলেও জানান তিনি।  
সূত্র : জাগোনিউজ২৪

Post a Comment