স্টার সিনেপ্লেক্সে ব্যাটম্যান ও সুপারম্যানের যুদ্ধ!


দুনিয়া কাঁপানো দুই সুপারহিরো ব্যাটম্যান ও সুপারম্যান। একে অপরের বিরুদ্ধে যুদ্ধে নামছেন তারা! এ যুদ্ধে কে জয়ী হবেন? সেটা দেখার জন্য উন্মুখ হয়ে আছেন অগণিত দর্শক।

অবশেষে অপেক্ষার প্রহর শেষ হচ্ছে। যুদ্ধ জয়ের মিশন নিয়ে আসছে শুক্রবার, ২৫ মার্চ স্টার সিনেপ্লেক্সের দর্শকদের সামনে হাজির হচ্ছে ব্যাটম্যান ও সুপারম্যান। সঙ্গে থাকবেন এক সুপার হিরোইন ‘ওয়ান্ডার ওম্যান’।

‘ব্যাটম্যান ভার্সেস সুপারম্যান: ডন অব জাস্টিস’ নামের বহুল আলোচিত এ ছবিটি আন্তর্জাতিকভাবে মুক্তি পেতে যাচ্ছে আগামী ২৫ মার্চ। যুক্তরাষ্ট্রসহ অন্যান্য দেশের সঙ্গে এদিন বাংলাদেশেও মুক্তি পাবে ছবিটি। দেশের দর্শকদের জন্য কাঙ্খিত এ সুযোগটি করে দিচ্ছে বসুন্ধরা সিটির স্টার সিনেপ্লেক্স।

প্রতিক্ষিত এই ছবির সার্বিক সহযোগীতায় রয়েছে ‘গ্রামীণফোন’। গ্রামীণফোন তার স্টার গ্রাহকদের বিনামূল্যে ‘ব্যাটম্যান ভার্সেস সুপারম্যান: ডন অব জাস্টিস’ মুভির টিকেট প্রদানের জন্য স্টার সিনেপ্লেক্সের সঙ্গে উদ্যোগ গ্রহন করেছে। স্টার গ্রাহকগণ একটি টিকিট ক্রয় করলে বিনামূল্যে পাবেন আরেকটি টিকিট। এই বিশেষ অফার শুধুমাত্র মুক্তির প্রথম এক সপ্তাহের জন্য স্টার সিনেপ্লেক্সে প্রযোজ্য হবে।

এদিকে ‘ম্যান অব স্টিল’ ছবির পর এই ছবিতে আবার সুপারম্যান চরিত্রে অভিনয় করেছেন ব্রিটিশ অভিনেতা হেনরি ক্যাভিল। অন্যদিকে প্রথমবারের মতো ব্যাটম্যানের পোশাক গায়ে দেখা যাবে জনপ্রিয় হলিউড তারকা বেন অ্যাফ্লেককে। ওয়ান্ডার ওম্যান হিসেবে আছেন ইসরায়েলের অভিনেত্রী গল গ্যাডোট। এ ছাড়াও অভিনয় করেছেন জেসি আইজেনবার্গ, অ্যামি অ্যাডামস, ডায়েন লেন, লরেন্স ফিশবার্ন, জেরেমি আয়রন্স, হলি হান্টার।

ছবিটির অফিসিয়াল সূত্রে জানা গেছে, জ্যাক স্নাইডার পরিচালিত এ ছবির নির্মাণ ব্যয় ২৫ কোটি ডলার। ছবিটির সবচেয়ে বড় চমক হলো সুপারম্যান, ব্যাটম্যান, ওয়ান্ডার ওম্যানের মতো কমিক চরিত্রগুলোকে দেখা যাবে একসঙ্গে। ছবির টিজারে যে চমক ছিল, ট্রেলারে তা বেড়ে যায় বহুগুণ। যুক্তরাষ্ট্রের চলমান কমিক-কনে আরও কিছু ট্রেলারের সঙ্গে ‘ব্যাটম্যান ভার্সেস সুপারম্যান: ডন অব জাস্টিস’-এর ট্রেলার অবমুক্ত করে ওয়ার্নার ব্রাদার্স। ৩ মিনিট ৪০ সেকেন্ডের ট্রেলারটি অনলাইনে মুক্তি পাওয়ার পরপরই রীতিমত হুমড়ি খেয়ে পড়েন দর্শক। কমিক-কনেও নাকি এমন ঘটনা ঘটেছে। ছবির প্রতিটি দৃশ্যে আছে চমক আর লুকানো গল্প।
সুপারম্যানের বড় ধরনের উত্থান-পতনের গল্প এটি। একই সঙ্গে পৃথিবীর কিছু মানুষ তাকে ভক্তি করছে, আবার কিছু মানুষ তাকে ঘৃণা করছে। অর্থাৎ, চিরায়ত ভাল-মন্দের বিরোধের মাঝে পড়ে যান সুপারম্যান। ট্রেলারে দেখা যায় বিচারের মুখোমুখি সুপারম্যান। সেখানে বলা হয়, ‘টুডে ইজ এ ডে ফর ট্রুথ।’

সত্যটা কী? সত্য হল, এ পৃথিবীতে এলিয়েন সুপারহিরোর দরকার নেই। কারণ তার শক্তি বিপজ্জনক। নতুন সংযোজন হিসেবে পাওয়া যাবে ওয়ান্ডার ওম্যানকে। আমাজনের নারী যোদ্ধাদের মতো পোশাকে তাকে বেশ মারকুটে ভূমিকায় দেখা যাবে। প্রশ্ন হল তিনি কার পক্ষে, ব্যাটম্যান না সুপারম্যানের? সেটা দেখার বিষয়।

এ ছবিতে উঠে এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের সাম্প্রতিক ইতিহাসের ছায়াও। বন্যার দৃশ্য মনে করিয়ে দেয় হারিকেন ক্যাটরিনা পরবর্তী সময়, রকেটের বিস্ফোরণ মনে করিয়ে দেয় মহাকাশযান চ্যালেঞ্জারকে। আর টুইন টাওয়ারের ধ্বংসযজ্ঞ মনে করিয়ে দেয় ৯/১১ -কে। সব মিলিয়ে পরিচালক জ্যাক স্নাইডার বাস্তব-অবাস্তবের মিশেলে অসাধারণ ডার্ক ফিলিংস তৈরি করেছেন।

ট্রেলারের সূত্রে আরও বলা যায়, সুপারহিরোদের মধ্যে লড়াই বাধিয়ে মার্ভেলকে একহাত দেখিয়ে দিল ডিসি কমিকস। মার্ভেলের ‘সিভিল ওয়ার’-এ অনেক সুপারহিরোকে পরস্পরের বিরুদ্ধে লড়তে দেখা যাবে। কিন্তু তার জন্য আরও অনেক দিন অপেক্ষা করতে হবে।

Source : jagonews24

Post a Comment