সুন্দরবনে বিজিবি-বিএসএফ যৌথ অনুশীলন চলছে


বাংলাদেশ-ভারতের সুন্দরবন এলাকায় বিজিবি-বিএসএফ এর মধ্যে সীমান্ত ব্যবস্থাপনা বিষয়ক তিন দিন ব্যাপি “সুন্দরবন মৈত্রী" নামে এক যৌথ অনুশীলন”(ঔড়রহঃ ঊীবৎপরংব) চলছে।

নীলডুমুর ৩৪ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের আত্ততাধীন কৈখালী বিওপি এবং ভারতের সমশেরনগর ৩ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় এ যৌথ অনুশীলন শুরু হয় শনিবার। প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত এই যৌথ অনুশীলন চলবে সোমবার পর্যন্ত । 

বিজিবি সদর দফতরের জনসংযোগ কর্মকর্তা মুহম্মদ মোহসিন রেজা জানান, যৌথ অনুশীলনের দ্বিতীয় দিন রোববার দুপুরে সুন্দরবনের টি-জংশন (ঞ-ঔঁহপঃরড়হ) এলাকায় (হাড়িয়াভাঙা ও রায়মঙ্গল নদীর সংযোগস্থল) পণ্যবাহী ভারতীয় কার্গো জাহাজ তল্লাশির যৌথ অনুশীলন করা হয়।

বিএসএফ এর আমন্ত্রণে ভারতীয় অংশে বিএসএফ এর ভাসমান বিওপিতে বিজিবি ও বিএসএফ এর ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ এই যৌথ অনুশীলন পরিদর্শন করেন এবং উভয় পক্ষ সৌজন্য বৈঠকে মিলিত হন।

বৈঠকে যৌথ অনুশীলন সুন্দরভাবে অনুষ্ঠিত হওয়ায় সন্তুষ্টি প্রকাশ করে উভয় পক্ষ। তাছাড়া এই যৌথ অনুশীলন কার্যক্রম সুন্দরবন এলাকায় সীমান্ত অপরাধ প্রতিরোধে বিশেষভাবে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে এবং সীমান্ত নিরাপত্তার ক্ষেত্রে কর্মতৎপরতা আরো কার্যকরভাবে প্রসারিত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তারা।

অনুষ্ঠানে বিজিবির দক্ষিণ পশ্চিম রিজিয়ন, যশোর এর রিজিয়ন কমান্ডার বিগ্রেডিয়ার জেনারেল খোন্দকার ফরিদ হাসান, খুলনা সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন ছাড়াও দক্ষিণ-পশ্চিম রিজিয়ন, যশোর এর পরিচালক (অপারেশন), ৩৪ ও ৩৮ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন এর অধিনায়কদ্বয়, দক্ষিণ-পশ্চিম রিজিয়ন, যশোরের ফিল্ড ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ কমান্ডার, রিভারাইন বর্ডার গার্ড কোম্পানি, নীলডুমুর, এর অধিনায়কসহ বিজিবি’র বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং অন্যান্য পদবীর বিজিবি সদস্য অংশগ্রহণ করেন।

অপরদিকে, বিএসএফ সাউথ বেঙ্গল ফ্রন্টিয়ার এর আইজি শ্রী সন্দীপ সালুনকি, ডিআইজি শ্রী কে এল শাহ, কলকাতা সেক্টর কমান্ডার, সাউথ বেঙ্গল ফ্রন্টিয়ারের নোডাল অফিসার, ৩ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের কমান্ড্যান্ট, বিএসএফ এর বিভিন্ন পর্যায়ের অফিসার এবং অন্যান্য পদবীর বিএসএফ সদস্য অংশগ্রহণ করেন।

অনুশীলনের দ্বিতীয় দিনে বাংলাদেশ এবং ভারতের ১০ জন সাংবাদিক এই অনুশীলন কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করেন।

যৌথ অনুশীলনের লক্ষ্যসমূহ
সুন্দরবন এলাকার জল সীমানায় সাধারণ সমস্যা এবং ঝুঁকিসমূহ পর্যবেক্ষণ করা, বিজিবি-বিএসএফ কর্তৃক সুন্দরবন এলাকায় নিজ নিজ সীমানার মধ্যে থেকে যৌথ টহল পরিচালনা করা, যৌথ টহল পরিচালনার মাধ্যমে বাংলাদেশ-ভারত নৌ-প্রটোকল রুটে চলাচলকারী কার্গো এবং মাছ ধরার ট্রলারে তল্লাশি কার্যক্রম অনুশীলন করা এবং উভয় দেশের ফরেস্ট ক্যাম্প ও কার্যক্রম সম্পর্কে অবগত হওয়া।
সূত্র : জাগোনিউজ২৪

Post a Comment