সেমিফাইনালের দৌড়ে বাংলাদেশের সম্ভাবনা কতটুকু?


বিশ্ব টি-টোয়েন্টি এর গ্রুপ-২ তে এবার খেলছে বাংলাদেশ, অস্ট্রেলিয়া, পাকিস্তান, নিউজিল্যান্ড ও স্বাগতিক ভারত। এই গ্রুপ থেকে ২টি দল যাবে সেমিফাইনালে, যদিও সামর্থ্যের বিচারে সবগুলো দলই বেশ শক্ত অবস্থানে দাঁড়িয়ে। স্বাভাবিক অবস্থায় সেমিফাইনালে যেতে হলে একটি দলকে নিজেদের ৪টি খেলার ৩টিতেই জিততে হবে। চলুন তবে পরিস্থিতি ও পরিসংখ্যান দেখে যাচাই করা যাক গ্রুপ-২ থেকে সেমিফাইনালের ফেভারিট দল কারা।

সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স বাংলাদেশের পক্ষেই কথা বলে, যখন তারা এশিয়া কাপের রানার্সআপ। এছাড়াও দলে তামিম, সাকিব, মাশরাফিদের মত সিনিয়র খেলোয়ারদের পাশাপাশি তাসকিন, সাব্বিরদের মত উদীয়মান খেলোয়ারদের মিশ্রণে দলটি যথেষ্টই পরিণত। সদ্য সমাপ্ত বিশ্ব টি-টোয়েন্টি এর গ্রুপ স্টেজও সেই উদ্দীপ্ত পারফম্যান্সের সাক্ষী। কপিল দেব কিংবা সাঙ্গাকারার মত গ্রেটরাও বাংলাদেশকে সমীহ করার মত দল হিসবে আখ্যায়িত করেছেন। বাংলাদেশের শেষ পাঁচটি ম্যাচ বিশ্লেষণ করলে পাওয়া যায়- জয়/পরিত্যক্ত/জয়/হার/জয় (৩ জয়, ১ হার, ১ পরিতাক্ত)। তাই বিশ্ব টি-টোয়েন্টি এর সেমিফাইনালের দৌড়ে বাংলাদেশের থাকাটা স্বাভাবিক।

দলটির নাম যখন অস্ট্রেলিয়া, তখন তাকে সমীহ করতেই হয়, তারা যে ২০১৫ বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন দল। দলে যেমন ফকনার, হ্যাজেলউডের মত পেসার রয়েছেন তেমনি আছেন ফিঞ্চ, স্মিথ কিংবা ম্যাক্সওয়েলের মত মারকুটে ব্যাটসম্যানও। সামর্থ্যের বিচারে অস্ট্রেলিয়া তো যে কোন কন্ডিশনেই ভয়ংকর প্রতিপক্ষ যেকোন দলের জন্য। তবে সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স খুব একটা উজ্জ্বল নয় তাদের, শেষ পাঁচটি ম্যাচ বিশ্লেষণ করলে পাওয়া যায়- জয়/জয়/হার/হার/হার (২ জয়, ৩ হার)। কিন্তু দলে এমন সব খেলোয়ার রয়েছেন যারা যেকোন পরিস্থিতিতে একাই ম্যাচ ঘুরিয়ে ফেলার যথেষ্ট ক্ষমতা রাখেন, তাই সেমিফাইনালের সম্ভাব্য দলের তালিকায় তাদের নাম থাকবেই।

পাকিস্তান দলটি বরাবরই ‘আন-প্রেডিক্টেবল’। সম্প্রতি কপিল দেব তার কলামে ভারতকে পাকিস্তানের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে পরামর্শ দিয়েছেন। কারণ, এর আগেও খারাপ খেলতে খেলতে হঠাৎই দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাঁড়ানোর অনেক দৃষ্টান্ত পাকিস্তানের আছে। দলে যেমন আমির, ইরফান অথবা ওয়াহাবের মত গতিময় ফাস্ট বোলার আছেন, তেমনি উমর, মালিক কিংবা শেহজাদের মত স্টাইলিস্ট ব্যাটসম্যান এবং আফ্রিদির মত টি-টোয়েন্টি স্পেশালিস্টও রয়েছেন। পাকিস্তানের শেষ পাঁচটি ম্যাচ বিশ্লেষণ করলে পাওয়া যায়- জয়/হার/জয়/হার/হার (২ জয়, ৩ হার)। কিছুটা অফ ফর্মে থাকলেও দলটি মরিয়া ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য, তাই পাকিস্তানকে রাখতেই হচ্ছে বাজিমাতের সংক্ষিপ্ত আসনে।

অন্য দলগুলোর তুলনায় নিউজিল্যান্ডকে একটু খাট করে দেখতে চাইলে ভুল ভাবছেন। তারা গেল বিশ্বকাপ ২০১৫ এর রানার্সআপ এবং সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সও সে কথাই বলে। সদ্য সমাপ্ত ভারতের বিপক্ষে বিশ্ব টি-টোয়েন্টি এর সুপার টেনের প্রথম ম্যাচটি ৪৭ রানের বড় ব্যবধানে জিতে তারা ইতমধ্যেই সামর্থ্যের জানান দিয়েছে। এছাড়া দলে সাউদি, বোল্ট, সোধি এবং নাথান ম্যাককালামের মত ব্যালেন্সড বোলিং সাইডের পাশাপাশি গাপটিল, উইলিয়ামসন কিংবা টেইলরের মত মারকুটে ব্যাটসম্যানও রয়েছেন। তাদের সর্বশেষ পাঁচ ম্যাচের বিশ্লেষণ- জয়/জয়/জয়/হার/জয় (৪ জয়, ১ হার), তাই সেমিফাইনালের অন্যতম দাবিদার নিঃসন্দেহে নিউজিল্যান্ড।

স্বাগতিক হিসেবে ভারত যথেষ্ট শক্তিশালী দল, আইপিএল এর কারণে ছোট সংস্করণে তাদের রেকর্ড বেশ আশাব্যঞ্জক। দলে ‘ক্যাপ্টেন কুল’ ধোনির অধীনে যেমন নেহরা, যুবরাজ, রায়নার মত অভিজ্ঞ খেলোয়ার আছেন, তেমনি রয়েছেন বুমরা কিংবা হার্ডিক পান্ডের মত ‘নিউ সেনসেশন’। এছাড়া বিরাট কিংবা রোহিতের আগ্রাসী ব্যাটিংও প্রতিপক্ষের দুশ্চিন্তার কারণ হতে পারে, পাশাপাশি তারা এশিয়া কাপের চ্যাম্পিয়ন দল। তাদের শেষ পাঁচ ম্যাচের বিশ্লেষণ করলে- হার/জয়/জয়/জয়/জয় (৪ জয়, ১ হার), তাই সেমিফাইনালের দৌড়ে তারা অন্যতম শক্ত প্রতিপক্ষ।

পরিসংখ্যান এবং সামর্থ্যের বিচারে কোন দলকেই হালকা করে নেওয়ার কোন অবকাশ থাকছে না, তাই গ্রুপ-২ তে বেশ শক্ত লড়াইয়েরই আভাস মিলছে। বাংলাদেশ পারবে তো সেই শক্ত লড়াই জিতে সেমিফাইনালের পথে এগিয়ে যেতে?
সূত্র : জাগোনিউজ২৪

Post a Comment