একটি আত্মোপলব্ধি...


আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমের সুরা আর-রাহমানের একাধিকবার বলেছেন, ‘তোমরা আমার কোন কোন অবদানকে অস্বীকার করবে’-আসলেই আল্লাহ তাআলার কোনো অবদানকেই অস্বীকার করার উপায় নেই। দুনিয়ার সকল সৃষ্টিই আল্লাহর আনুগত্যশীল। শুধুমাত্র মানুষকে তার কর্মের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে। ভালো-মন্দ বিচারের জ্ঞানও দেয়া হয়েছে। এ জন্যই মানুষ আশরাফুল মাখলুকাত তথা সৃষ্টির সেরা জীব। তাই মানুষের আত্মোপলব্দির জন্য ছোট্ট একটি উপমা তুলে ধরা হলো-

আল্লাহ তাআলা সুরা বাক্বারার ৭৪ নং আয়াতে বলেছেন, আল্লাহর ভয়ে পাথরের (কম-বেশি) অশ্রু বিসর্জন দেয়। এ আয়াতে পাথরের তিনটি অবস্থার কথা তুলে ধরা হয়েছে।

ক. পাথর থেকে বেশি পানি প্রসবন। অর্থাৎ খুব বেশি ক্রন্দন করা।
খ. কম পানি নিঃসরণ। অর্থাৎ অপেক্ষাকৃত কম ক্রন্দন করা। এ দুটি বিষয় অধিকাংশ মানুষের জানা।
গ. আল্লাহর ভয়ে পাথর নিচে গড়িয়ে পড়ে। যা অনেকেরই অজানা থাকতে পারে।

পাথরের জ্ঞান ও অনুভূতি কোনোটাই নেই। ভয় এবং আত্মোপলব্দির জন্য জ্ঞান বা অনুভূতির প্রয়োজনও নেই। তারপরও পাথর আল্লাহর ভয়ে কাঁদে এবং নিচে গড়িয়ে পড়ে।

পাথরের কান্না এবং ভয় মানুষের অন্তরকে আল্লাহর ভয় ও ভালোবাসার দিকে নিয়ে যেতে পারে। যার মাঝে এ উপলব্দি কাজ করবে সেই হবে সফলকাম।

আল্লাহ তাআলা কুরআন মাজিদের অন্য আয়াতে বলেছেন, ‘সাত আসমান ও জমিন এবং এতদুভয়ের মধ্যস্থলে যা কিছু আছে সবাই আল্লাহ তাআলার তাসবিহ পাঠ করে এবং প্রশংসা করে, কিন্তু তোমরা তাদের প্রশংসা ও তাসবিহ বুঝ না। নিশ্চয় আল্লাহ সহনশীল ও ক্ষমাশীল।

সুতরাং পাথরের কান্না ও ভয় মুসলিম উম্মাহর জন্য হতে পারে চিরস্থায়ী কল্যাণকর আত্মোপলব্দি। এ উপলব্দিকে অন্তরে ধারণ করার মাধ্যমে সবাইকে কুরআনের বিধি-বিধান মেনে চলার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Source : jagonews24

Post a Comment