ঝাড়খণ্ডে মুসলিম গরু ব্যবসায়ী হত্যা: আটক ৫


ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য ঝাড়খণ্ডে শুক্রবার দুই মুসলিম গরু ব্যবসায়ীকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যার ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতদের মধ্যে গোহত্যা বিরোধী সংগঠনের একজন কর্মী রয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো। 

পুলিশ জানায়, গ্রেপ্তারকৃত পাঁচজন ঝাড়খণ্ডের ঝাবর গ্রামের বাসিন্দা। তারা দুই গরু ব্যবসায়ীকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। লাতেহার পুলিশের প্রধান অনুপ বিরথারি বলেন, ‘জোড়া খুনের সঙ্গে যে আটজন জড়িত তাদের পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকি তিনজন এখনও পলাতক। শিগগিরই পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করবে। আমরা তাদের সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করেছি।’ তিরি আরো বলেন, ‘গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের মধ্যে একজন ছাড়া বাকিদের কোনো ক্রিমিনাল রেকর্ড নেই। তারা ছোটখাট ব্যবসায়ী এবং গ্রামের কৃষক।’

নিহতদের স্বজনরা জানান, পাশের জেলা ছাত্রায় বার্ষিক গবাদিপশু মেলায় অংশ নিতে নিহত মজলুম ও ইমতেয়াজ শুক্রবার সকালে ১০/১২টি গরু নিয়ে সেখানে যায়। শনিবার ভোর প্রায় চারটা থেকে মোবাইলে তাদের আর পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে তাদের হত্যার খবর পাওয়া যায়। 

শুক্রবার ঝাড়খণ্ডে দুই মুসলিম গবাদিপশু বিক্রেতাকে গাছের সাথে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করার খবর জানায় ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া। নিহতরা হলেন- মজলুম আনসারি (৩২) এবং তার ছেলে ইমতিয়াজ খান (১৩)।  

ঝাড়খণ্ডে গরুর মাংস খাওয়া নিয়ে গত তিন মাসে হিন্দু-মুসলমানদের মধ্যে বেশ কয়েকটি সংঘর্ষ হয়েছে। গত বছরের সেপ্টেম্বরে এক মুসলিম গরুর মাংস খেয়েছে- এমন গুজবে তাকে পিটিয়ে হত্যা করে উত্তর প্রদেশের দাদ্রি গ্রামের কিছু লোক। ওই ঘটনায় তখন বড় ধরনের রাজনৈতিক বিক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছিল। বিরোধী দলের দাবি, ক্ষমতাসীন এনডিএ সরকার ধর্মীয় ও রাজনৈতিকভাবে অসহিষ্ণু। তাদের কারণেই এসব ঘটনা ঘটছে।
সূত্র : বাংলামেইল২৪

Post a Comment