চলে গেলেন চিত্র পরিচালক খালিদ মাহমুদ মিঠু


আর না ফেরার দেশে চলে গেলেন গুণী চলচ্চিত্র পরিচালক খালিদ মাহমুদ মিঠু। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন.... আজ সোমবার, ৭ মার্চ নিজ বাসার সামনে একটি গাছের ডালের নিচে চাপা পড়ে তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে।

খালিদ মাহমুদ মিঠুর পারিবারিক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করে জানায়, আজ দুপুরে ধানমণ্ডি ৪ নম্বর সড়কে রিকশা করে যাচ্ছিলেন তিনি। এ সময় রাস্তার পাশে থাকা একটি কৃষ্ণচূড়া গাছ তাঁর মাথায় পড়ে। গুরুতর আহত অবস্থায় গণস্বাস্থ্য হাসপাতালে নেয়া হলে দায়িত্বরত চিকিৎসক এই মেধাবী চিত্র নির্মাতাকে মৃত ঘোষণা করেন। মৃত্যু কালে তার বয়স হয়েছিলো ৫৫ বছর। চিত্রশিল্পী কনকচাঁপা চাকমার সঙ্গে সুখের দাম্পত্য জীবনে আর্য শ্রেষ্ঠ ও শিরোপা পূর্ণা নামে দুই সন্তানের জনক ছিলেন তিনি।

খালিদ মাহমুদ মিঠু দেশের স্বনামধন্য চলচ্চিত্রকার ও চিত্রশিল্পী। ১৯৬০ সালে তিনি জন্ম গ্রহণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউট থেকে ১৯৮৬ সালে এমএফএ করেন।

খালিদ মাহমুদ মিঠু পরিচালিত প্রথম ছবি ‘গহীনে শব্দ’। প্রথম ছবিই তাকে এনে দিয়েছিলো শ্রেষ্ঠ পরিচালক হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রাপ্তির সম্মান। ছবিটি শ্রেষ্ঠ পরিচারলকসহ চারটি ক্যাটাগরিতে ২০১০ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে। এই অসামান্য সাফল্যের কারণে খালিদ মাহমুদ মিঠুকে আনুষ্ঠানিক সংবর্ধনা দিয়েছে বেঙ্গল শিল্পালয়।
২০০৭ সালে তিনি বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত ১৬ তম জাতীয় চারুকলা প্রদর্শনীতে ‌‘আরব বাংলাদেশ ব্যাংক পুরস্কার’ লাভ করেন। আর চলতি বছরে তার নির্মিত ‘জোনাকির আলো’ ছবিটি সেরা অভিনেত্রীর জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছে।

চলচ্চিত্র নির্মাণ ও ছবি আঁকার পাশাপাশি মিঠু পরিচিত ছিলেন একজন লেখক হিসেবেও। নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদকে নিয়ে বই লিখেছেন তিনি।

এই নির্মাতার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে চলচ্চিত্রাঙ্গন ও চিত্রশিল্পাঙ্গনে।

Source : jagonews24

Post a Comment