গোপনীয়তা প্রকাশের দৃষ্টান্ত


ভ্রাতষ্পুত্র কর্তৃক পিতৃব্যকে হত্যার ফয়সালায় যখন লোকেরা একে অন্যের প্রতি দোষারোপ করতে থাকে। তখন আল্লাহ তাআলা প্রকৃত দোষী ব্যক্তিকে চিহ্নিত করতে গরু জবাইয়ের অভিনব পদ্ধতির নির্দেশ দিলেন। এ পদ্ধতির মাধ্যমে আল্লাহ তাআলা দোষী ব্যক্তিকে প্রকাশ করে দিয়ে মূলত পরকালীন জিন্দেগীতে মানুষের সকল ভালো ও মন্দ কর্ম প্রকাশ করার ক্ষমতার ইঙ্গিত প্রকাশ করলেন। আল্লাহ বলেন-
এবং যখন তোমরা এক ব্যক্তিকে হত্যা করার পর ঐ বিষয়ে বিরোধ করছিলে এবং তোমরা যা গোপন করছিলে আল্লাহ তার  প্রাকশ করতে ইচ্ছা করলেন।

এ জন্যে আমি আদেশ করেছিলাম, গরুর যে কোনো একাংশ দ্বারা উক্ত মৃত ব্যক্তির দেহটিকে আঘাত কর, এভাবে আল্লাহ মৃতদের জীবিত করবেন এবং তাঁর কুদরতের নির্দশনসমূহ তোমাদেরকে দেখাবেন, যেন তোমরা তা অনুধাবন করতে পার। (সুরা বাক্বারা : আয়াত ৭২ ও  ৭৩)

এ আয়াতদ্বয়ে আল্লাহ তাআলা স্পষ্ট ভাষায় ঘোষণা করলেন, তোমরা যা গোপন করছিলে তিনি (আল্লাহ) তা প্রকাশ করে দিলেন। আয়াতের ব্যখ্যায় হজরত মোসাব্বাব ইবনে রাফে বলেছেন, যে ব্যক্তি সাতটি বন্ধ কক্ষের অভ্যন্তরে গিয়ে কোনো সৎ কর্ম করে, তাও আল্লাহ প্রকাশ করেন, আর যে ব্যক্তি সাতটি রুদ্ধদ্বার কক্ষে গিয়ে যদি অসৎ কাজ করে তাও তিনি প্রকাশ করেন। কেননা আল্লাহ তাআলার নিকট কোনো কিছুই গোপন নেই।

পরিশেষে...
কিয়ামাতের কঠিন দিনে সমস্ত মৃত মানুষকে হাজির করানো হবে, তার বাস্তব প্রমাণ পাওয়া যায় এ ঘটনায়। যেভাবে ভ্রাতুষ্পুত্র কর্তৃক নিহত লোকটি জীবিত হয়ে কথা বলেছে, ঠিক এভাবেই আল্লাহ তাআলা পরকালে প্রতিটি মানুষকে জীবিত করবেন এবং প্রত্যেক ভালো ও মন্দ কাজের প্রাপ্য প্রতিদান দিবেন।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে জবাবদিহিতার মানসিকতা তৈরি করে পরকালের প্রস্তুতি গ্রহণের তাওফিক দান করুন। আমিন।

Source : jagonews24

Post a Comment