ভেরাইজনের অ্যান্টি-হ্যাকার ইউনিট হ্যাকিংয়ের কবলে


ভেরাইজনের অ্যান্টি-হ্যাকার ইউনিট ‘ভেরাইজন এন্টারপ্রাইজ সলিউশন’-এর ১৫ লাখেরও বেশি গ্রাহক শিকার হয়েছেন হ্যাকিংয়ের। এক ই-মেইল বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্রের টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠানটি সম্প্রতি এ তথ্য জানায়। খবর ইউএসএ টুডে।  

তবে বিষয়টি গোচরে আসার পর এন্টারপ্রাইজের ক্লায়েন্ট পোর্টালে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে বলেও জানানো হয় বিবৃতিতে। সম্প্রতি সাইবার অপরাধ ফোরামে বিক্রির উদ্দেশ্যে তোলা হয়েছিল প্রতিষ্ঠানটিকে। এ সময় গ্রাহক-সংক্রান্ত কোনো তথ্য প্রকাশ করা হয়নি।

ইউনিটটি হ্যাকিংয়ের শিকার হওয়ার পর ভেরাইজনের সহায়তায় ঘুরে দাঁড়িয়েছিল। এখন প্রতিষ্ঠানকে পৃথক করে দেয়া হচ্ছে।

কম্পিউটার নিরাপত্তা-বিষয়ক লেখক ব্রায়ান ক্রেবসের তথ্য অনুযায়ী, ‘ক্লোজলি গার্ডেড আন্ডারগ্রাউন্ড সাইবারক্রাইম ফোরাম’-এ সম্পূর্ণ ডাটাবেসটি ক্রেতাদের কাছে ১ লাখ ডলারে বিক্রির প্রস্তাব দেয়া হয় ভেরাইজনের পক্ষ থেকে। প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে নিরাপত্তা-বিষয়ক অস্থিতিশীলতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে ক্রেতারাও পাল্টা দরপ্রস্তাব করেন। 

ভেরাইজনের ই-মেইল বিবৃতি অনুসারে, ভেরাইজন এন্টারপ্রাইজ সলিউশন এরই মধ্যে হ্যাকিংয়ের বিষয়টি খতিয়ে দেখেছে ও উপর্যুপরি ব্যবস্থা নিয়েছে গ্রাহকদের তথ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে। তদন্তকারীরা এন্টারপ্রাইজের গ্রাহকদের বেসিক কন্ট্যাক্ট-সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহের সময় একজন আক্রমণকারীকেও খুঁজে পেয়েছেন।  প্রতিষ্ঠান বলছে, হ্যাকাররা কাস্টমার প্রোপ্রাইটারি নেটওয়ার্ক ইনফরমেশনে (সিপিএনআই) প্রবেশ করতে পারেননি। 

ভেরাইজন কমিউনিকেশনসের ব্যবসা বিশাল পরিসর জুড়ে। এর ওয়্যারলেস ব্যবসা ফোন, ট্যাবলেট ও কম্পিউটারসহ ওয়্যারলেস হটস্পট ডিভাইসে হ্যান্ডসেট, টেক্সট মেসেজ ও ডাটা সেবা প্রদান করে থাকে।

২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে ভেরাইজন ফোরজি এলটিই নেটওয়ার্ক ছড়িয়ে দেয় ৩০ কোটি ৩০ লাখ মানুষের মাঝে। ২০১৪ সালে প্রতিষ্ঠানটির ওয়্যারলেস সাবস্ক্রাইবার পৌঁছে ১২ কোটি ৫৩ লাখে। ভেরাইজনের আবাসিক ও ক্ষুদ্র ব্যবসার মধ্যে ওয়্যারলাইন সেবাও উল্লেখযোগ্য। এর এফআইওএস সেবা চালু হয় ২০০৫ সালে। 
সূত্র : জাগোনিউজ২৪

Post a Comment