স্টাইলিশ সিঙ্গেল কামিজ


একটা সিঙ্গেল কামিজ, সঙ্গে আপনার পছন্দসই ওড়না বা সালোয়ার পরে নিতে পারেন, যখন যেটা ভালো লাগে। থ্রিপিসের বদলে শুধু একটি কামিজ বা সিঙ্গেল কামিজ খুব চলছে এখনকার ফ্যাশনে। সিঙ্গেল কামিজের ডিজাইন, কাটিং, রঙসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে দেয়া হচ্ছে আধুনিকতার ছোঁয়া। এই কামিজগুলো লং কামিজের কাটিংয়েও পাওয়া যায়। অর্থাৎ বর্তমান ফ্যাশনের ধারা বজায় রেখে কামিজগুলোকে লম্বা করা হচ্ছে। এগুলো লং হাতারও হয় আবার স্লিভলেসও পাওয়া যায়।

আর কাপড়ের ক্ষেত্রে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে ভয়েল, লিলেন, ডুপিয়ান, ডবি ফেব্রিক্স। হালকা রঙের সুতি, লিলেন, খাদি আর তাঁত কাপড়ে তৈরি হচ্ছে নকশাদার স্লিভলেস কামিজ আর কুর্তা স্টাইলের লম্বা কামিজ। উৎসব আর পার্বণের জন্য বেছে নেওয়া হচ্ছে সিল্ক, মসলিন, অ্যান্ডি সিল্ক, তসর, নেট, জর্জেটসহ নানা গর্জিয়াস কাপড়।

সিল্ক, মসলিন, তসর, জর্জেট, নেটের মতো গর্জিয়াস কাপড় গুলোতে কারচুপি, স্প্রে, লেস, প্যাচ-ওয়ার্ক, সিকুইনসহ নানা ধরনের মাধ্যম ব্যবহার করা হচ্ছে। এছাড়া প্রতিটা ডিজাইনেও প্যাটার্ন, চেক কাপড়, লেস, প্যাচ-ওয়ার্ককে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। রঙের ক্ষেত্রে মেরুন, হলুদ, সবুজ, সাদা রঙের পাশাপাশি কালো, কমলা, বাদামি, কমলা, ম্যাজেন্টা রঙের শেড লক্ষণীয়।

পছন্দসই যেকোনো জিন্স, লেগিংস, জেগিংস অথবা ফ্যাশনেবল সালোয়ারের সাথে পরা যাবে এই সিঙ্গেল সুতির কামিজগুলো। জিন্স কিংবা লেগিংস ছাড়াও সিঙ্গেল কামিজ পরতে পারেন ধুতি, চুড়িদার ও স্লিপটেড ভ্যারিয়েশনের সালোয়ারের সঙ্গে। এছাড়াও রয়েছে চোস্ত পায়জামার একাধিক স্টাইল, চুড়িদারের ২-৩টি ভ্যারিয়েশন । কামিজে কাজ করা থাকলে সালোয়ার সিম্পল আর কামিজে হালকা কাজ হলে সালোয়ারে কাজ হয় গর্জিয়াস। কামিজের সঙ্গে রং ম্যাচিং করে ওড়না পড়তে পারেন অথবা একেবারে বিপরীত রংও বেছে নিতে পারেন।

অঞ্জন্স, নগরদোলা, কে-ক্রাফট, আড়ং, বসুন্ধরা সিটি সহ দেশের প্রায় সব ফ্যাশন হাউসে পাওয়া যাবে এই সিঙ্গেল কামিজ। এছাড়া মনের মতো কাপড় কিনেও বানিয়ে নিতে পারেন সিঙ্গেল কামিজ। সিঙ্গেল কামিজ বানাতে দেড় গজ কাপড় লাগবে। যে কোনো টেইলার্সে অর্ডার দিয়ে আপনি বানিয়ে নিতে পারেন পছন্দমতো সিঙ্গেল কামিজ।
Source : jagonews24

Post a Comment