অস্ট্রেলিয়ার টানা চতুর্থ শিরোপায় বাধা ওয়েস্ট ইন্ডিজ


টানা চতুর্থবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার নারী ক্রিকেটাররা। আগের তিন আসরের চ্যাম্পিয়নও তারা। টানা চতুর্থবার বিশ্বকাপ ছুঁয়ে নতুন ইতিহাসের পথে রয়েছে দলটি। অপরদিকে প্রথমবারের মত এ সংস্করণের ফাইনালে উঠেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের নারীরা। আর প্রথম সুযোগটাই ভালোভাবে কাজে লাগিয়ে শ্রেষ্ঠত্বের মুকুটটা মাথায় পরা তাদের প্রধান লক্ষ্য। এ লক্ষ্যেই কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সে বাংলাদেশ সময় দুপুর তিনটায় ট্রফি জয়ের জন্য লড়াইয়ে নামবে দল দুটি।

২০০৯ সালে নারীদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম আসর বসে ইংল্যান্ডে। ঘরের মাঠে সেবার নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ইংল্যান্ড। সেবারই শেষ, এরপর থেকেই এ আসরে একচ্ছত্র আধিপত্য করে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়ান নারীরা। টানা তিনবার ঘরে নিয়েছে এ ট্রফি। সে ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে মুখিয়ে আছেন ল্যানিংয়ের দল। তবে তাদের এ পথে বড় বাঁধা এখন ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে গ্রুপ পর্বে প্রায় সমানে সমান দুই দল। উভয় দলই তিনটি করে জয় পেয়ে রানারআপ হয়ে উত্তীর্ণ হয়েছিল সেমিফাইনালে। সেখানেও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়া জয় পায় ৫ রানে আর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজ পায় ৬ রানে। তবে অভিজ্ঞতা ও শক্তির বিচারে ক্যারিবিয়ানদের চেয়ে বেশ এগিয়ে আছে অসিরা। টানা তিনটি ফাইনাল খেলার অভিজ্ঞতার সঙ্গেও রয়েছে ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে দারুণ ইতিহাসও।

আইসিসি বিশ্বকাপে এর আগে একবারই মোকাবেলা করে দল দুটি। ২০১৩ সালে ১১৪ রানের বিশাল ব্যবধানে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারায় অস্ট্রেলিয়া। এমনকি টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এখন পর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে কখনোই হারের দেখা পায়নি অসি মেয়েরা। এর আগের আটবারের মোকাবেলায় আটবারই জয় পেয়েছে তারা। তবে সাম্প্রতিক সময়ে দারুণ ক্রিকেট খেলছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বিশেষ করে দারুণ ফর্মে রয়েছেন অধিনায়ক স্ট্যাফানি টেলর। এখন পর্যন্ত টুর্নামেন্টে ধারাবাহিকভাবে রান তুলে দ্বিতীয় স্থানে আছেন তিনি। বিশ্বকাপের পাঁচ ইনিংসে তার রান ৪০, ৪০, ৩৫, ৪৭ এবং ২৫। শুধু ব্যাট নয় বল হাতেও দারুণ সফল। ৮ উইকেট নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছেন তিনি।  

তবে পুরনো ইতিহাস নিয়ে ভাবছেন না ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক টেলর। ফাইনাল জয়ের ব্যাপারে দারুণ আশাবাদী তিনি। অস্ট্রেলিয়াকে ফেভারিট মেনেই মাঠে নামবে তার দল। তবে নিজেদের সেরাটা দিয়ে জয় তুলে নেবেন, বিশ্বাস তার। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এটা আমাদের অনেক বড় দায়িত্ব। প্রথমবারের মত টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সেরা হওয়ার সুবর্ণ সুযোগ সামনে। সতীর্থরা শিরোপা হাতে তুলে নিতে মুখিয়ে আছে। অস্ট্রেলিয়া অনেক শক্তিশালী ও ব্যালেন্সড দল। তাদের বিপক্ষে ভালো পারফরমেন্স করতে হবে। নয়তো সব স্বপ্ন ধুলিসাৎ হয়ে যাবে। তবে আশা করি, সাফল্য নিয়েই আমরা এবারের বিশ্বকাপ শেষ করবো।’

শিরোপা জয়ের জন্য মুখিয়ে আছেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক ম্যাগ ল্যানিংও। টানা চতুর্থবার শিরোপা জয়ের জন্য সব কিছু করতে প্রস্তুত বলেও উল্লেখ করেন তিনি। এ প্রসঙ্গে ল্যানিং বলেন, ‘প্রথমটি বাদে পরের তিন আসরেই শিরোপা জিতেছি আমরা। দল হিসেবে আমরা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে কতটা শক্তিশালী তা এ থেকেই বোঝা যায়। এবারও আমাদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করতে চাই। শিরোপা জয়ের জন্য সবকিছু তৈরি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ভালো দল বলেই ফাইনালে উঠেছে। তাদের বিপক্ষে পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলতে পারলে এবং সবকিছু ঠিক থাকলে শিরোপা আমাদেরই থাকবে।’

Source : jagonews24

Post a Comment