৩-৭ এপ্রিল বাংলালিংকের কমপ্ল্যায়েন্স সপ্তাহ


টেকসই ব্যবসায়িক উন্নয়নের অন্যতম মূল পরিচালক কমপ্ল্যায়েন্স। কমপ্ল্যায়েন্সের ব্যাপারে সচেতনতা এবং এর যথাযথ চর্চা কোম্পানির অভ্যন্তরে শুরু হয়ে তা ক্রমশ একটি কোম্পানির ব্যবসায়িক অংশীদার পর্যন্ত যে সমস্ত ক্ষেত্রে তার কার্যক্রম পরিচালনা করে, সে পর্যন্ত প্রসার হওয়া উচিত। এই বিশ্বাসকে সামনে রেখে বাংলালিংক এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহকে কমপ্ল্যায়েন্স সচেতনতা সপ্তাহ হিসেবে পালনের ঘোষণা দিয়েছে।

একটি কোম্পানিকে প্রতিযোগিতামূলক এবং সক্রিয় হতে হলে এর কর্মীদের অত্যন্ত দক্ষ হতে হবে। সুনির্দিষ্ট প্রক্রিয়া অনুসরণ, বিশ্বের সেরা কমপ্ল্যায়েন্স চর্চা এবং সর্বাধুনিক প্রযুক্তিগত উন্নয়নের সাথে পরিচিত থাকার মাধ্যমে তারা আরো উন্নত কর্মীতে পরিণত হবেন। বাংলালিংক এই সকল কার্যক্রমের মাধ্যমে তার কর্মীদের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে বধ্যপরিকর।

বাংলালিংকের কোড অব কনডাক্ট (সিওসি) কোম্পানির ব্যবসায়িক মূলনীতি বর্ণনা করে যেন কর্মীরা তা অনুধাবন এবং তাদের কাজে প্রয়োগ করতে পারেন। আসন্ন ডিজিটাল বিপ্লবের দিনগুলোতে বাংলালিংক কমপ্ল্যায়েন্স সম্পর্কে সচেতনতা কার্যক্রম পরিচালনা করবে যা ব্যবসায়িক অংশীদার, সরবরাহকারী এবং প্রোডাক্ট বিক্রেতা পর্যন্ত বিস্তৃত। 

বাংলালিংকের বাবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এরিক অস্ বলেন,  বাজারে প্রতিযোগিতামূলক এবং সফল হতে হলে একটি কোম্পানিকে আরও ডিজিটাল এবং কমপ্ল্যায়েন্সের ঝুঁকিগুলো সম্পর্কে সচেতন হতে হবে। 

তিনি আরও বলেন, আমরা নতুন একটি ডিজিটাল যাত্রার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করছি যার ফলে আমরা আরও দ্রুত, প্রতিযোগিতাশীল, প্রক্রিয়া-কেন্দ্রিক এবং সর্বোচ্চ নৈতিক গুণমানম্পন্ন  হয়ে উঠবো। কমপ্ল্যায়েন্স সপ্তাহ ইন্ডাস্ট্রিতে কমপ্ল্যায়েন্ট হবার ব্যাপারে একটি অনুসরণীয় উদাহরণ স্থাপন করবে এবং আমাদেরকে উন্নত ব্যবসায়িক বৃদ্ধির দিকে এগিয়ে নেবে।
সূত্র : জাগোনিউজ২৪

Post a Comment