মালয়েশিয়ায় দালালদের তৎপরতায় বিপাকে বাংলাদেশিরা


মালয়েশিয়ায় অবৈধ অভিভাসীদের বৈধকরণের নিবন্ধন প্রক্রিয়ায় ধুম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। এ প্রক্রিয়ায় আসতে পারে পরিবর্তন। দালাল চক্রের তৎপরতা আর নানা অনিয়মের কারণে মারাত্মক ঝামেলায় পড়তে হচ্ছে শ্রমিকদের। এতে প্রতিদিন হয়রানির শিকার হচ্ছেন বাংলাদেশি শ্রমিকরা। 

যেন দেখার কেউ নেই! শ্রমিকরা কারো কাছ থেকে সঠিক কোনো দিক নির্দেশনা না পাওয়ায় তারা পড়েছেন মহাবিপদে। একদিকে অবৈধ অন্যদিকে পুলিশি অভিজান সবমিলিয়ে অজানা আতংকের মধ্যে সময় কাটছে তাদের। 

এ বিষয়ে দূতাবাস থেকেও সঠিক কোনো দিক নির্দেশনা মিলছে না। মালয়েশিয়া সরকারে ঘোষণা অনুযায়ি ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে তিন মাসের মধ্যে নিবন্ধনের কাজ শেষ করতে সময় বেঁধে দিলেও নানা অনিয়মের কারণে নিবন্ধন করতে পারছেন না বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।  

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রি-হিয়ারিং এর নিবন্ধনে অতিরিক্ত সার্ভিস ফি সহ শ্রমিকদের গুণতে হচ্ছে প্রায় ৪ থেকে ৫শ’ রিঙ্গিত। প্রায় ১৬টি ক্যাটাগরিতে টাকা জমা দিতে হচ্ছে। এদিকে যারা আবেদন করছেন তাদেরকে কোনো গ্যারান্টিও দেয়া হচ্ছে না। যদি কোনো আবেদন নাকচ করা হয় তাহলে সেই টাকাও ফেরত পাবেন না আবেদনকারীরা। কেন পাবেন না এর নির্দিষ্ট কোনো উত্তর মিলছে না। সব মিলিয়ে অনিশ্চিয়তার মধ্যেই নিবন্ধন প্রক্রিয়া চললেও কেউ সাহস পাচ্ছেন না নিবন্ধন করতে। যারা নিবন্ধিত হয়েছেন তারা পুলিশের হাতে ধরা পড়লে তাদের ছেড়ে না দিয়ে জেলে পাঠিয়ে দিচ্ছে। 

ইমিগ্রেশন সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশসহ ১৫টি সোর্স কান্ট্রিকে একটি গ্রুপে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আর ইন্দোনেশিয়া ও মিয়ানমারকে আলাদা করা হয়েছে। মোট ৫টি ব্যক্তি মালিকানাধীন কোম্পানিকে এই দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশসহ একই গ্রুপের ১৫টি দেশের শ্রমিকদের নিবন্ধন করার জন্য বেসরকারি প্রতিষ্ঠান মাই ইজির নেতৃত্বে পিএমএফ কনসোর্টিয়াম করা হয়েছে ৩টি কোম্পানিকে।

এছাড়া ইন্দোনেশীয়দের নিবন্ধন করার জন্য ইমান নামে একটি কোম্পানি কাজ করছে। অপরদিকে মিয়ানমারের নাগরিকদের জন্য বুকিত ইন্দাহ নামে একটি কোম্পানিকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে  বাংলাদেশি এজেন্ট অপুর সঙ্গে টেলিফোনে (+৬০১১২৬১১১৫১৬) যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সেদেশের  A1Visa.Com MYEG এর সার্বিক তত্ত্বাবধানে কন্সট্রাকশন, ম্যানুফ্যাক্চারিং সার্ভিসসেক্টর ওয়ার্ক পারমিট ভিসা করতে সর্বমোট ৬২৫০ রিঙ্গিত। নিবন্ধন ১০০০ ও ফিংগার প্রিন্ট ১৫০০ মোট ২৫০০ রিঙ্গিত নেয়া হচ্ছে। 

ফিংগার করার সময় MYEG এর অফিসিয়াল সিম কার্ড দেয়া হচ্ছে আবেদনকারীদের। যার মাধ্যমে আবেদনকারীর ভিসা কার্যক্রম সম্পর্কে জানা যাবে এসএমএস এর মাধ্যমে। তবে STATUS লিখে এই নাম্বারে ২৭৫৫৫ এস এম এসের মাধ্যমে জানতে পারবে আবেদনকারী।

অপু বলেন, আবেদনকারীরা ভিসা পাবে কিনা তার কোন সদোওর দিতে পারেননি তিনি। তবে গত তিন দিনে ২৫ জন শ্রমিকের নিবন্ধন করেছেন। মাই ইজির মাধ্যমে নিবন্ধনকারী নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শ্রমিক এ প্রতিবেদককে বলেন, নিবন্ধন করেছি কিন্তু কবে যে লিগেলাইজেশন পাবো তা সঠিক করে বলতে পারছেন না মাই ইজির কর্মকর্তারা। 

এদিকে মাই ইজি কোম্পানির নিবন্ধনে অস্বচ্ছতার অভিযোগ ওঠায় মাই ইজিকে বাদদিয়ে ইমিগ্রেশন ও (কেডিএন) বিভাগ যৌথ উদ্যোগে নিবন্ধনের কাজ অতি শিগগির কাজ শুরু করবে বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে।
সূত্র : জাগোনিউজ২৪

Post a Comment