বিস্ময়কর চলন্তপাথর!


এই মহাবিশ্বের আকাশ-মাটি-পানি সবখানেই যেন বিস্ময়ের ছড়াছড়ি। বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যার জন্য হয়তো আমরা অনেক কিছুতেই বিস্মিত হই না। তবে আজও এমন অনেক ঘটনা রয়ে গেছে, যেগুলো সম্পর্কে পুরোপুরি নিশ্চিত হতে পারেননি বিজ্ঞানীরা।

এমনই একটি ঘটনা নিয়মিত ঘটে যাচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার রেসট্র্যাক প্লায়া, ডেথ ভ্যালিতে। এসব স্থানে কিছু পাথর রয়েছে যেগুলো নিয়মিত স্থান পরিবর্তন করে। বিস্ময়ের ব্যাপার হচ্ছে- কোনো মানুষ এ পাথরগুলো সরায় না, কোনো পশু-পাখির পায়ের ছাপও এসব পাথরের আশপাশে পাওয়া যায়নি। এখনো পর্যন্ত কোনো মানুষ এসব পাথরকে সরতে বা চলতে না দেখলেও পাতলা কাদার স্তরে পাথরগুলোর স্থান পরিবর্তনের স্পষ্ট ছাপ পাওয়া গেছে বহুবার।
সাধারণত প্রতি দুই থেকে তিন বছরে পাথরগুলো স্থান পরিবর্তন করে। এসব পাথরের অনেকগুলোর ওজন প্রাপ্তবয়স্ক একজন মানুষের সমান। পাথরগুলোর চলার পথ পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে এগুলো নির্দিষ্ট কোনো পথে চলে না। কখনো সোজা চলে আবার কখনো আঁকাবাঁকা পথে চলে। এমনও দেখা গেছে দুটি পাথর কিছু দূর সমান্তরালে চলার পর একেবারেই বিপরীত দিকে চলতে শুরু করে। এমনও হয় পাথরগুলো যেখান থেকে যাত্রা শুরু করেছিল আবার সেখানেই ফিরে আসে।

পাথরগুলোর চলার পথ সাধারণত ১০ থেকে ১০০ ফুটের মতো লম্বা, ৩ থেকে ১২ ইঞ্চি চওড়া এবং এক ইঞ্চির কম গভীর হয়। বিস্ময়কর এ ঘটনাটি প্রথম ১৯৪৮ সালে খেয়াল করেন বিজ্ঞানীরা। অনেক গবেষণা করে বিজ্ঞানীরা এর কারণ হিসেবে হঠাৎ তীব্র বাতাস, কাদামাটি, বরফ, তাপমাত্রার তারতম্য- এসব বিষয়ের উল্লেখ করেছেন। তবে এর কোনোটিতেই তারা যথেষ্ট প্রমাণ নিয়ে একমত হতে পারেননি।
সূত্র : বাংলামেইল২৪

Post a Comment