চুয়াডাঙ্গায় হিটস্ট্রোকে নারীর মৃত্যু

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার উথলী গ্রামে তীব্র তাপদাহে হিটস্ট্রোকে রহিমা খাতুন (৬৫) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। সোমবারের অতিরিক্ত গরমে তার মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে গত ৩ দিনে চুয়াডাঙ্গায় হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে ২ জনের মৃত্যু হলো। 

এদিকে গত ৫ দিনে চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রা বাড়ছেই। প্রচণ্ড দাবদাহ, আগুনের মতো উত্তপ্ত বাতাস আর ভ্যাপসা গরমে কাহিল হয়ে পড়েছে জনজীবন। ফ্যানের বাতাসেও স্বস্তি মিলছে না। ঘরে-বাইরে সর্বত্র অসহনীয় অবস্থা। যেন আগুনের ফুলকির ন্যায় তাপপ্রবাহের কারণে মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়েছে। এছাড়া দাবদাহের কারণে পুড়ছে ফসলের ক্ষেতও। 

চুয়াডাঙ্গা আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে, সোমবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা চুয়াডাঙ্গায় ৪০ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। যা চলতি মৌসুমের সবচেয়ে বেশি তাপমাত্রা। গত ৫ দিন ধরে জেলার তাপমাত্রা ৪০ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে ৩৯ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ওঠানামা করছে। তীব্র দাবদাহের কারণে প্রচণ্ড রোদের পাশাপাশি আগুনের মতো উত্তপ্ত বাতাস আর ভ্যাপসা গরমের তীব্রতা ও রোদের প্রখরতায় মাঠে, পথে-ঘাটের মানুষের দরদর করে ঘামতে দেখা গেছে। তৃষ্ণায় কাতর হয়ে পড়েন অনেকেই। 

এতে করে দৈনন্দিন কাজকর্মে নেমে এসেছে স্থবিরতা। ভ্যাপসা গরমে ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। সেই সঙ্গে মানুষের পাশাপাশি গবাদি পশু-পাখিও কাবু হয়ে পড়েছে। গরমের কারণে রোদের তাপমাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে শহরের রাস্তা-ঘাট একেবারে জনশূন্য হয়ে পড়ছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাড়ির বাহির হচ্ছে না। 
সূত্র : জাগোনিউজ২৪

Post a Comment