অভিভাবকদের সচেতনতাই শিক্ষা উন্নয়নের বড় পরিবর্তন


শিক্ষার ব্যাপারে অভিভাবকদের সচেতনতা বৃদ্ধি পাওয়াই শিক্ষা উন্নয়নের বড় পরিবর্তন বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

বুধবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষা বৃত্তি ট্রাস্টের উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে এ মন্তব্য করেন তিনি।

সভা শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ে জানান, স্বল্প আয়ের বাবা-মায়েরাও তাদের সন্তানকে এখন স্কুলে পাঠাচ্ছে, যা একটি ইতিবাচক পরিবর্তন বলে মনে করেন তিনি (প্রধানমন্ত্রী)।

শিক্ষাকে সর্বজনীন করে তোলাই সরকারের লক্ষ্য উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকার শিক্ষাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে জাতির জনকের যে স্বপ্ন ছিলো তা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, একাত্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধের পর যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে জাতির জনক সবচেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দিয়েছিলেন শিক্ষাকে। প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো জাতীয়করণ করেছিলেন। তারই ধারাবাহিকতায় তার সরকার ক্ষমতায় এসে ১৯৯৬ সালে আর পরবর্তী সময়ে ২০০৯ সালে ক্ষমতায় এসে শিক্ষাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন মেধাবীরা এগিয়ে যাচ্ছে, নারী শিক্ষাকে উৎসাহ দেয়া হচ্ছে। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে বৃত্তি দেয়া হচ্ছে। আর নারীদের উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত বৃত্তির আওতায় আনা হয়েছে। সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি কারিগরি ও ভোকেশনাল শিক্ষা জোরদার করার উপরও গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

বৈঠকে, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মুস্তাফিজুর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব আবুল কালাম আজাদসহ সংশ্লিষ্ট সিনিয়র সচিবরা উপস্থিত ছিলেন।

সূত্র : জাগোনিউজ২৪

Post a Comment