**TRY FREE HUMAN READABLE ARTICLE SPINNER/ARTICLE REWRITER**

সাময়িকভাবে যে সকল বিয়ে অবৈধ


জীবন ও যৌনতার অকাট্য বাস্তবতাকে ইসলাম অকপটে স্বীকার করে। তাই পাশবিক চিন্তা ও বিশৃঙ্খলামুক্ত সমাজ গঠনে বিয়ের গুরুত্ব অত্যধিক। কিছু কিছু ক্ষেত্রে সাময়িকভাবে বিয়ে অবৈধ। যা তুলে ধরা হলো-

ক. একই সঙ্গে দুই বোনকে বিয়ে করা কুরআনের বিধান অনুযায়ী হারাম। কিন্তু যদি স্ত্রীর মৃত্যু হয় অথবা অন্য কোনো কারণে বিয়ে ছিন্ন হয়ে যায় তবে স্ত্রীর বোনকে বিয়ে করতে কোনো নিষেধ নেই।

খ. মুশরিক নারী ও পুরুষের সঙ্গে মুসলিম নারী পুরুষের বিয়ে বৈধ নয়। তবে যদি মুশরিক নারী বা পুরুষ ইসলাম গ্রহণ করে তবে বিয়েতে কোনো বাধা নেই।

গ. তিন তালাকের মাধ্যমে বিয়ে বিচ্ছেদ হলে, পুনরায় স্ত্রী হিসেবে গ্রহণ করতে চাইলে ঐ নারীর অন্যত্র বিয়ে সম্পাদনপূর্বক তালাকপ্রাপ্তা না হওয়া পর্যন্ত প্রথম স্বামীর সঙ্গে পুনরায় বিয়ে হারাম। যদি দ্বিতীয় স্বামী স্বেচ্ছায় বিয়ে বিচ্ছেদ ঘটায় তবে ঐ নারী প্রথম স্বামীর জন্য বৈধ।

ঘ. যে নারী কোনো পুরুষের সঙ্গে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ, এ বন্ধন থাকাকালীন অন্য কোনো পুরুষের সাথে তার বিয়ে অবৈধ।

ঙ. মানুষ কোনো মানুষের মালিকানায় থাকলে অর্থাৎ দাস কারো মালিকানায় থাকলে তার সঙ্গে কোনো মহিলার বিয়ে  বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া অবৈধ। যদি দাস স্বাধীনতা লাভ করে তবে বিয়ে বৈধ। ঠিক দাসীর ক্ষেত্রেও তাই প্রযোজ্য।

বর্তমান সময়ে আমাদের সমাজে এমন অনেক লোক রয়েছে, যারা দুই বোনকে একত্রে বিয়ে করে থাকে। স্ত্রীকে তালাক দিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে ব্যতিত আবার বিয়ে করে, মুসলিমরা মুশরিকদেরকে অহরহ করেছে, স্বামী থাকতে অন্য আরেকজনকে স্বামী হিসেবে গ্রহণ করছে। যা ইসলামি শরিয়তে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে উপরোক্ত ইসলামি শরিয়তের বিষয়গুলোর প্রতি খেয়াল রেখে বিয়ে-শাদীতে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের তাওফিক দান করুন। আমিন।

Source : jagonews24

Post a Comment