সময় বেঁধে দেয়া বাঙালির উচ্ছ্বাসকে ‘দমন’


পহেলা বৈশাখ বাংলা ও বাঙালির প্রাণের উৎসব বাংলা বর্ষবরণ অনুষ্ঠান বিকেল ৫টার মধ্যে শেষ করার সরকারি সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়েছে দেশের শীর্ষ প্রগতিশীল সাংস্কৃতিক সংগঠন উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী।

একইসাথে মঙ্গল শোভাযাত্রায় মুখোশ ব্যবহার নিষেধের সিদ্ধান্তেরও নিন্দা জানিয়েছে উদীচী। 

তবে উদীচীসহ বিভিন্ন সংগঠন ও সচেতন মানুষের দাবি অনুযায়ী, বিকট আওয়াজের বিদেশি সংস্কৃতির পরিচায়ক ভুভুজেলা বাঁশি নিষিদ্ধ করায় সরকারকে সাধুবাদ জানিয়েছে তারা। 

সোমবার (৪ এপ্রিল) এক বিবৃতিতে এসব কথা জানান উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি কামাল লোহানী ও সাধারণ সম্পাদক প্রবীর সরদার। 

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, বর্ষবরণ উৎসবকে নির্দিষ্ট সময়ের ঘেরাটোপে বেঁধে দেয়ার সিদ্ধান্ত কোনোভাবেই সমীচীন নয়। এর মাধ্যমে উৎসবমুখর বাঙালির প্রাণের উচ্ছ্বাসকে দমন করা হচ্ছে।

তারা বলেন, নিরাপত্তার অজুহাত দেখিয়ে বিকেল ৫টার মধ্যে সব অনুষ্ঠান শেষ করার নির্দেশনা গ্রহণযোগ্য নয়। অবিলম্বে এ সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানান তারা। 

এ ছাড়া, বৈশাখ উদযাপনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে থাকা মঙ্গল শোভাযাত্রায় মুখোশ ব্যবহার নিষিদ্ধ করা বিষয়ক যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে তা সার্বিকভাবে উৎসবের বৈচিত্র্যকে খর্ব করবে বলে মন্তব্য করেন কামাল লোহানী ও প্রবীর সরদার। বাঙালির ঐতিহ্যের অন্যতম অনুষঙ্গ মুখোশ ব্যবহারের অনুমতি দেয়ার দাবি জানান তারা। 

ভুভুজেলা নিষিদ্ধের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে নেতৃবৃন্দ বলেন, বিদেশি অপসংস্কৃতির পরিচায়ক ভুভুজেলা নিষিদ্ধের দাবিতে বহুদিন ধরেই সোচ্চার ছিল উদীচীসহ সমাজের সচেতন মানুষ। এ ধরনের বাঁশির সাহায্য নিয়েই উৎসব চলাকালীন অনেক অন্যায় ও অপকর্ম সংঘটিত হয়। তাই, ভুভুজেলাসহ বিকট আওয়াজের বাঁশি নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত সময়োপযোগী।
সূত্র : বাংলামেইল২৪

Post a Comment