Sponsored Ad

জবি শিক্ষার্থী নাজিমের মগজ-রক্তে সয়লাব রাস্তা-মর্গ!



রাজধানীর সূত্রাপুরে বুধবার রাতে নাজিমউদ্দিন (২৬) নামে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) এক শিক্ষার্থীকে কুপিয়ে ও মাথায় গুলি করে হত্যার পর ঘটনাস্থল ও মর্গের মেঝে মগজ আর রক্তে সয়লাব হয়ে আছে।

বুধবার রাত সোয়া ৮টার দিকে তাকে ধারালো দেশীয় অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ও পরে মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে অজ্ঞাতপরিচয় দুর্বৃত্তরা।

এরপর ঘটনাস্থলে নাজিমউদ্দিনের মাথা থেকে রক্তক্ষরণ হতে থাকে। এতে রাস্তা রক্তে সয়লাব হয়ে যায়। এ সময় রাস্তায় মগজ পড়ে থাকতে দেখা যায়। ঘটনার পর সূত্রাপুর থানার পুলিশ নাজিমউদ্দিনের মরদেহ উদ্ধার করে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (মিটফোর্ড) নিয়ে গেলে সেখানকার মেঝে ও ট্রলিতে প্রচুর রক্ত দেখা গেছে। সেই সঙ্গে নাজিমউদ্দিনের মাথার মগজ পুরোটাই বের হয়ে ট্রলিতে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকতে দেখা যায়। এ সময় দেখা যায়, তার মাথার খুলি দুটি ভাগে বিভক্ত হয়ে বীভৎস অবস্থা ধারণ করেছে।
এ বিষয়ে নাজিমউদ্দিনের সহপাঠী তৌহিদুল ইসলাম বাংলামেইলকে বলেন, বিকেলে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ক্লাস শেষে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিয়ে বন্ধু সোহেলের সঙ্গে পায়ে হেঁটে মেসে ফিরছিলেন নাজিমউদ্দিন। 

তিনি স্থানীয় টেইলার্সের এক দর্জির বরাত দিয়ে বলেন, রাত সোয়া ৮টার দিকে মোটরসাইকেলে করে তিন থেকে চারজন অজ্ঞাতপরিচয় দুর্বৃত্ত এসে পেছন থেকে নাজিমউদ্দিনের মাথায়, মুখে উপর্যুপরি কোপাতে থাকে। এরপর তার মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করলে তার মাথার মগজ রাস্তায় ছিটকে পড়ে এবং ঘটনাস্থল রক্তাক্ত হয়ে যায়। এ ঘটনায় ভয় পেয়ে দোকানদাররা দোকান বন্ধ করে দিগ্বিদিক ছুটে পালিয়ে যান। পরে খবর পেয়ে সূত্রাপুর থানার পুলিশ নাজিমউদ্দিনের মরদেহ স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (মিটফোর্ড) নিয়ে যায়। 

রক্তাক্ত মর্গ, ট্রলিতে মগজ, বিভক্ত খুলি
এদিকে, বুধবার গভীর রাতে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে গিয়ে দেখা যায়, পুরো মেঝে ট্রলি নাজিমউদ্দিনের রক্তে সয়লাব। ট্রলিতে পড়ে আছে তার মাথার পুরো মগজ। মাথার খুলি দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে হা হয়ে আছে। সে এক বীভৎস দৃশ্য! ট্রলিতে নিথর নাজিমউদ্দিনের মরদেহ।
এ বিষয়ে সূত্রাপুর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) সমীর চন্দ্র সুধা বাংলামেইলকে বলেন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাজিমউদ্দিনের হত্যাকাণ্ডের কোনো কারণ জানা যায়নি। কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে, সে বিষয়েও তা তাৎক্ষণিক জানা যায়নি। তবে হত্যাকারীদের শনাক্তের চেষ্টা চলছে।
নিহত নাজিমউদ্দিনের বাবার নাম মৃত আব্দুস সামাদ। গ্রাম-টোকা বড়উট, বিয়ানীবাজার, সিলেট। তিনি জবির আইন বিভাগের ষষ্ঠ ব্যাচ ও সেশন- বি, বিকেল সেশন শিক্ষার্থী।
সূত্র : বাংলামেইল২৪

Post a Comment