রাজকীয় বাইক সুপারলাইট ১৫০


কিওয়ে ১০০,১২৫ এবং ১৫০ সিসি বাইকগুলো দ্রুত বাইকার্সদের মন জুগিয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় কিওয়ের আমদানি কারক প্রতিষ্ঠান দেশের বাজারে নিয়ে এলো কিওয়ে সুপারলাইট ১৫০। রাজকীয় ধরনের এই বাইকটি চলাচলে দেবে পরিপূর্ণ তৃপ্তি। 

বাইকটির লুকিং এ রয়েছে আভিজাত্য। ডাবল সাইলেন্সার পাইপের সঙ্গে ইঞ্জিনে ব্যবহৃত হওয়া উজ্জ্বল অংশগুলো দৃষ্টি কাড়ে। এই বাইকটির ব্রেক প্যাডেল এবং গিয়ার প্যাডেল বৃহৎ পরিসরের। পুরো পা রাখা যায় এই প্যাডেলগুলোতে। ফ্রন্ট লুকে হেডলাইট এবং স্পিডোমিটার আগের দিনের আকর্ষণীয় হার্লি  ডেভিসন বাইকের মতো। জার্মানে হিটলারের শাসনামলে এ ধরণের বাইকগুলো বেশ জনপ্রিয় ছিল। বাইকটিতে রয়েছে এনালগ ডিসপ্লে। বাইকটিতে বসার জন্য সিটটিও বেশ বড় সড়। বাইকের পেছনের চাকার মার্ট ঘাটটি চাকার অর্ধেককে আবৃত করে রাখে। বাইকের কন্ট্রোল প্যানেলে সুইচিং এও রয়েছে বৈচিত্র্য। সাধারণ বাইকগুলোতে ইন্ডিকেটর সুইচ বাম হাতে থাকলেও এই বাইকে ডানে যাওয়ার জন্য ডান হাতে এবং বামে যাওয়ার জন্য বাম হাতের ইন্ডিকেটর রয়েছে। সিট পজিশন থেকে বাইকের হ্যান্ডেলটি নিয়ন্ত্রণ করা যায় সহজেই। বাইকটির সিটগুলোর পজিশন যথার্থ। চালক এবং আরোহী উভয়ের জন্যই আরামদায়ক। ট্যাঙ্ক এর সাথে সিটটি মানিয়েছে ভালোভাবেই।

১৫০ সিসির এই বাইকটি ক্রইজার ধরণের। ৪ স্ট্রোকের ২ ভাল্বের ইঞ্চিনে বাইকটির সর্বোচ্চ শক্তি ৮৫০০ আর পি এমে ১২ বিএইচপি। বাইকটির টর্ক পাওয়ার ৬০০০ আরপিএমে ১১ এনএম। বোর এবং স্ট্রোক ৬২ X ৪৯.৫। এয়ার কুলড ইঞ্চিনের বাইকটিতে রয়েছে ৫ গিয়ারের গিয়ারবক্স। বাইকটির ওজন ১৩৪ কেজি। সুপারলাইটের সামনে হাইড্রোলিক ব্র্যাক থাকলেও পেছনের চাকায় রয়েছে ড্রাম ব্রেক।বাইকটির দুটি চাকাতেই অ্যালয় হুইল রয়েছে। বাইকটির টায়ারদুটি সফট গ্রিপযুক্ত। বাইকটিতে সেলফ স্টার্টারের সাথে কিক স্ট্যার্টারও রয়েছে। 

সুপারলাইট ১৫০ ঘন্টায় সর্বোচ্চ ১১৫ কিলোমিটার বেগে ছুটতে পারে। প্রতি লিটারে বাইকটি ৫০ কিলোমিটার পাড়ি দিতে পারে। রেজিস্ট্রেশন সহ বাইকটির মূল্য ২ লাখ ১০ হাজার টাকা। রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরাতে অনুষ্ঠিত ২য় বাইক শো উপলক্ষে বাইকটির প্রি বুকিং এবং ডিসকাউন্ট অফার চলছে। মেলাতে যে কোন কিওয়ে বাইকের সাথে সেলফি তুলে ফেসবুকে #‎KeewayBangladesh‬ ‪#‎DhakaBikeShow2016‬ পোস্ট করার পর কিওয়ের ডিসকাউন্ট ডেস্কে ছবিটি প্রদর্শন করলে মিলবে ডিসকাউন্ট কার্ড। ডিসকাউন্ট কার্ড দেখিয়ে এই বাইকে পাওয়া যাবে ১০ হাজার টাকা ছাড়। এই ডিসকাউন্ট কার্ডের মেয়াদ ৩ মাস। ডিসকাউন্ট অফারটি স্পিডোজের মহাখালীতে প্রধান শো রুমের জন্য প্রযোজ্য।
সূত্র :বাংলামেইল২৪

Post a Comment