**TRY FREE HUMAN READABLE ARTICLE SPINNER/ARTICLE REWRITER**

এবার ফুটপাতে ডাস্টবিন স্থাপন হলো মেয়র সাঈদ খোকনের নামে


এবার মেয়র সাঈদ খোকনের নামে ফুটপাতে ডাস্টবিন স্থাপন করছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। তারা জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন যেন তারা নির্দিষ্ট স্থানে বর্জ্য। প্রধান এলাকাগুলোতে ইতোমধ্যে সাতশর বেশি ডাস্টবিন স্থাপন করা হয়ে গেছে। আগামী মাসের মধ্যে স্থাপন করা হবে পাঁচ হাজারের বেশি। এর ফলে চলাচলের সময় নাগরিকরা হাতের বর্জ্য রাস্তায় না ফেলে ওগুলোতেই ফেলতে পারবেন। এতে সহজ হয়ে যাবে রাস্তা পরিষ্কার রাখা।

নগরীর গুলিস্তান, ফুলবাড়িয়া, মতিঝিল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসসহ বিভিন্ন এলাকার ফুটপাতে নতুন ডাস্টবিন স্থাপন করা হয়েছে। ছোট সাইজের সুদৃশ্য ডাস্টবিনগুলো অনেকেরই নজর কেড়েছে। ডাস্টবিনের গায়ে লেখা আছে- ‘বর্জ্যগুলো বিনে ফেললেই পরিষ্কার থাকবে আপনার শহর। বিনীত অনুরোধে সাঈদ খোকন, মেয়র, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। পরিচ্ছন্ন ঢাকা, সবুজ ঢাকা’।

অনেকেই ব্যবহার করছেন নতুন স্থাপিত ডাস্টবিন। গুলিস্তানের একজন পথচারী বলেন, ‘এ ধরনের ডাস্টবিন নগরীর নতুন সংস্করণ। অনেক ভালো হয়েছে বিষয়টা। আগে ময়লা আবর্জনা রাস্তায় ফেলতাম, এখন অভ্যাস করছি ডাস্টবিনে ফেলার।’

পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা আবদুস সালাম বলেন, ‘এসব ডাস্টবিনে তো হাতের বর্জ্য রাখা যাবে। কিন্তু সড়কের মধ্যে বড় বড় কন্টেইনারে যেভাবে গৃহস্থালী ও বাজারের বর্জ্য রাখা হয় তার কি হবে?’ তিনি বলেন, ‘বর্জ্য ফেলতে নতুন ডাস্টবিন স্থাপনের আইডিয়াটা অবশ্যই ভালো। তবে সড়কের কন্টেইনারও যাতে সরিয়ে নেওয়া হয় সে ব্যবস্থাও করা দরকার।’

পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের (পবা) যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মনোয়ার হোসেন ফুটপাতে ডাস্টবিন স্থাপনের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘এটা খুবই ভালো উদ্যোগ। মানুষের সিভিক সেন্স বাড়াতে এই ডাস্টবিন কাজে লাগবে। তবে এসব ডাস্টবিন যাতে হালকা বর্জ্যের জন্য ব্যবহার হয় এবং গৃহস্থালী বর্জ্য যাতে কেউ এখানে ফেলতে না পারে সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।’


Image Credit: imgur.com

সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা বলছেন, রাস্তা দিয়ে চলাফেরার সময় যেখানে-সেখানে বর্জ্য ফেলা অনেকেরই অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। কেউ হয়তো হাঁটতে হাঁটতে চিপস খাচ্ছেন, খাওয়া শেষে চিপসের প্যাকেটটি রাস্তার একদিকে ছুড়ে ফেলে দিলেন। কেউ ফেললেন সিগারেটের শেষাংশটি। বাদামের খোসা, বিস্কুটের প্যাকেট ইত্যাদির স্থানও হয় ফুটপাত কিংবা সড়কের বুকে। এক সময় নোংরা হয়ে পড়ে নগরীর রাস্তা-ফুটপাত।

সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা সকালে সড়ক ঝাড়ু দিয়ে এসব বর্জ্য অপসারণের পর কিছুক্ষণ রাস্তা-ঘাট পরিষ্কার থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের চলাচল বাড়লে রাস্তাগুলোতে ফিরে আসে প্রতিদিনকার চিত্র। লোকজন কেন যেখানে-সেখানে বর্জ্য ফেলে এর উত্তরে তারা বলে থাকেন, ডাস্টবিন না থাকায় তারা এ কাজটি করেন।

জানা যায়, রাজপথ পরিচ্ছন্ন রাখতে এবার প্রধান সড়কের ফুটপাত ও গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় স্টিলের ছোট ছোট ডাস্টবিন স্থাপন করা হচ্ছে। এর ফলে রাস্তায় চলাফেরার সময় যেখানে-সেখানে বর্জ্য ফেলার দিনও শেষ হয়ে আসছে। আগামী মাসের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ করপোরেশন (ডিএসসিসি) এলাকায় পাঁচ হাজার ৭০০ ডাস্টবিন স্থাপনের কাজ শেষ হবে।

আরো জানা যায়, ডিএসসিসির ৫৭টি ওয়ার্ডের প্রতিটিতে কম-বেশি ১০০টি বিন স্থাপন করা হবে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত প্রায় ৭০০ বিন স্থাপন করা হয়েছে। চলতি মাসের মধ্যে তিন হাজার বিন স্থাপন করা যাবে। মে মাসের মধ্যে সব বিন স্থাপন সম্পন্ন হবে। বিষয়টা যেহেতু নতুন তাই একটু সময় লাগবে এটা ব্যবহারে মানুষের অভ্যাস গড়ে তুলতে।’

Source: viralbd

Post a Comment