সেলফি কেড়ে নিল সাত বন্ধুর জীবন!


নয়া দিল্লি: গঙ্গায় সাঁতার কাটতে নামার আগে সেলফি তুলছিলেন ১৯ বছরের যুবক শিবম। উত্তর প্রদেশের কানপুর শহরে সেই সময়ে খুব বৃষ্টি হচ্ছিল। পা পিছলিয়ে গঙ্গায় পড়ে যান শিবম। সেটা দেখে পানিতে ঝাঁপ দেন একই সঙ্গে গঙ্গায় সাঁতার কাটতে আসা মাকসুদ।

কানপুরের সিনিয়র পুলিশ সুপারিন্টেনডেন্ট শলভ মাথুর বলেন একে তো বৃষ্টি, তার ওপরে গঙ্গায় ভীষণ স্রোত ছিল সেই সময়ে। শিবম আর মাকসুদ তলিয়ে যেতে থাকেন। বন্ধুদের বাঁচাতে একে একে পানিতে ঝাঁপ দেন আরও পাঁচ বন্ধু। বুধবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। কিন্তু স্রোতের সঙ্গে লড়াই খুব বেশিক্ষণ চালাতে পারেননি কেউই। ডুবুরি নামানো হয় কিছুক্ষণের মধ্যেই।

প্রায় দুই ঘণ্টা পরে সাতজনেরই দেহ উদ্ধার করেন ডুবুরিরা। হাসপাতালে নিয়ে গেলে সবাইকেই মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। এদের মধ্যে মাকসুদের বয়স ৩০ এর ওপরে কিন্তু বাকিরা সকলেই ১৯ থেকে ২১ বছর বয়সের।

শলভ মাথুরের মন্তব্য, “সেলফি তুলতে গিয়ে বৃষ্টির মধ্যে পা পিছলে পড়ে গিয়েই দুর্ঘটনা ঘটে। এক পরিসংখ্যান বলছে, গত দুই বছরে ৫০টিরও বেশি মৃত্যুর কারণ সেলফি। মুম্বাইতে আরব সাগরের ধারে দাঁড়িয়ে সেলফি তুলতে গিয়ে পা পিছলিয়ে পানিতে পড়ে মৃত্যু হয়েছিল তিন যুবতীর। তাদের বাঁচাতে গিয়ে মারা যান অন্য এক যুবক। 

চলন্ত ট্রেনের কাছে দাঁড়িয়ে সেলফি তুলতে গিয়ে জানুয়ারি মাসে উত্তর প্রদেশেই মারা গিয়েছিলেন তিন কলেজশিক্ষার্থী। ওই দুর্ঘটনায় বেঁচে যাওয়া তাদের চতুর্থ সঙ্গী পুলিশকে জানিয়েছিলেন যে চলন্ত ট্রেনটার খুব কাছে গিয়ে এক দুঃসাহসিক সেলফি তুলে সামাজিক সাইটে পোস্ট করার ইচ্ছে ছিল তাদের।

সূত্রঃ বিএনএফ২৪

Post a Comment