Bangla News: ইতিহাসের কলংকময় ২১ আগস্ট আজ


দেশের ইতিহাসে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার ১২তম বার্ষিকী আজ। ইতিহাসের কলংকময় ২১ আগস্ট। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতে ২০০৪ সালের এদিন নারকীয় হামলা চালানো হয়। বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে চালানো এ হামলায় সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রয়াত জিল্লুর রহমানের সহধর্মিণী ও আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক আইভি রহমানসহ ২৪ নেতাকর্মী নিহত হন।

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও তৎকালীন বিরোধী দলের নেতা শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের নেতারা সেদিন অল্পের জন্য এ হামলা থেকে রক্ষা পান। আকস্মিক এ হামলায় আহত হন আরও ৪০০ জন। আহতদের অনেকেই পঙ্গু হয়ে গেছেন। তাদের কেউ কেউ আর স্বাভাবিক জীবন ফিরে পাননি। ভয়াল ২১ আগস্টের ১২তম বার্ষিকী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। বাণীতে ২১ আগস্টের শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও আহতদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন তারা। দিবসটি পালন উপলক্ষে নানা কর্মসূচি নেয়া হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, ২০০৪ সালের ২১ আগস্টের ওই সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন তৎকালীন বিরোধী দল আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সমাবেশের শেষদিকে ট্রাকের ওপর তৈরি অস্থায়ী মঞ্চে দলের সভানেত্রী হিসেবে বক্তব্য দেয়া শুরু করতেই চারদিক থেকে শুরু হয় গ্রেনেড হামলা। উপর্যুপরি গ্রেনেড হামলায় একের পর এক ছিন্নভিন্ন হতে থাকে সমাবেশে যোগ দেয়া আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের দেহ। ঘটনার আকস্মিকতায় সমাবেশস্থল থেকে যে যার মতো পালাতে থাকেন। এ সময় তৎকালীন মেয়র মোহাম্মদ হানিফসহ আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা মানবঢাল তৈরি করে শেখ হাসিনাকে নিরাপদে গাড়িতে তুলে দেন। গ্রেনেডের আঘাত থেকে অলৌকিকভাবে বেঁচে গেলেও তার (শেখ হাসিনা) শ্রবণশক্তির ক্ষতি হয়। ন্যক্কারজনক এ হামলার বিচার প্রায় শেষ পর্যায়ে। এ ঘটনায় হওয়া দুটি মামলায় এ বছরই রায় ঘোষণা হতে পারে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

বর্বরোচিত হামলায় নিহতরা হলেন : আইভি রহমান, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষী ল্যান্স করপোরাল (অব.) মাহবুবুর রশীদ, আবুল কালাম আজাদ, রেজিনা বেগম, নাসির উদ্দিন সরদার, আতিক সরকার, আবদুল কুদ্দুস পাটোয়ারি, আমিনুল ইসলাম মোয়াজ্জেম, বেলাল হোসেন, মামুন মৃধা, রতন শিকদার, লিটন মুনশি, হাসিনা মমতাজ রিনা, সুফিয়া বেগম, রফিকুল ইসলাম (আদা চাচা), মোশতাক আহমেদ সেন্টু, মোহাম্মদ হানিফ, আবুল কাশেম, জাহেদ আলী, মোমেন আলী, এম শামসুদ্দিন, ইসাহাক মিয়া প্রমুখ।
জানা গেছে, ২১ আগস্টের এ হামলার পর দুটি মামলা হয়। একটি হত্যা মামলা ও অপরটি বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের মামলা। অভিযোগ রয়েছে, ২০০৪ সালের ২১ আগস্টের এ হত্যাকাণ্ডের বিচারের ব্যাপারে তৎকালীন বিএনপি সরকার নির্লিপ্ত ভূমিকা পালন করেছিল। শুধু তা-ই নয়, এ হামলার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের রক্ষা করতে সরকারের কর্মকর্তারা উঠেপড়ে লাগেন। জজ মিয়া নাটক সাজিয়ে ঘটনা ভিন্ন খাতে নেয়ার চেষ্টা চালানো হয়। এসব কারণে মামলা দুটির বিচার বিলম্বের মুখে পড়ে। বর্তমানে মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে। মোট ৪৯২ জন সাক্ষীর মধ্যে ২২৪ জনের সাক্ষ্য নেয়া হয়েছে। এ বছরই রায় ঘোষণা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক শনিবার বলেছেন, এ হামলা মামলার বিচার প্রায় শেষ পর্যায়ে। যে কোনো দিন রায় ঘোষণা করা হবে। ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১-এ মামলা দুটির বিচারকাজ একসঙ্গে চলছে। হত্যা মামলায় আসামি ৫২ জন ও বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের মামলায় আসামি ৪১ জন। ৫২ আসামির মধ্যে ৩৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৮ জন জামিনে, ২৫ জন কারাগারে আছে। আসামিদের মধ্যে মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে। বাকি ১৮ পলাতক আসামির অনুপস্থিতিতেই বিচারকাজ চলছে। একই সঙ্গে পলাতকদের দেশে ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টাও অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

কর্মসূচি : দিবসটি উপলক্ষে আজ বিকাল ৪টায় বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে স্থাপিত অস্থায়ী শহীদ বেদীতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় নেতাদের সঙ্গে নিয়ে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ, দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে অংশগ্রহণ করবেন। একই স্থানে তিনি ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত শহীদ পরিবারের সদস্য ও আহতদের সঙ্গে সাক্ষাৎ এবং আলোচনা সভায় অংশগ্রহণ করবেন। এছাড়া আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী এবং ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠন দিবসটি উপলক্ষে আলোচনা সভা, দেয়া মাহফিলসহ নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।


-লেটেস্টবিডিনিউজ

Post a Comment