গাড়ির ধাক্কায় রাস্তায় কাতরাচ্ছেন মতিবুল, ফোন নিয়ে চম্পট পথচারী



গাড়ির ধাক্কায় রাস্তায় প্রায় এক ঘণ্টা ধরে পড়ে রক্তাক্ত হয়ে কাতরাচ্ছেন এক ব্যক্তি। পথচারীরা দেখছেন, কিন্তু কেউ তাকে উদ্ধারে এগিয়ে এলেন না। রাস্তায় পড়ে থাকা তার মোবাইল সেট নিয়ে চম্পটও দিলেন একজন। অতিরিক্ত রক্তপাতের কারণে রাস্তায় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন আহত ব্যক্তি। এ রকমই এক নিষ্ঠুর ঘটনার সাক্ষী হয়ে থাকলো ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার ভোরে নয়াদিল্লির রাস্তায়।

রাস্তায় পড়ে থেকে মৃত্যুর কোলে সমর্পণ করা ওই ব্যক্তির নাম মতিবুল। পেশায় রিকশাচালক। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে আধা কিলোমিটার দূরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার আগে দিল্লির সুবাস নগরের রাস্তায় ঘণ্টাব্যাপী পড়েছিলেন তিনি। সিসিটিভির ফুটেজে ধরা পড়েছে দিল্লির নিষ্ঠুরতার এই চিত্র। 


মতিবুল পশ্চিমবঙ্গ থেকে কাজের সন্ধানে দশ বছর আগে দিল্লিতে পাড়ি জমিয়েছিলেন। দিনে অটোরিকশা চালাতেন তিনি। রাতে নিরাপত্তারক্ষীর কাজ করতেন। ৪০ বছর বয়স্ক মতিবুলের চার সন্তান রয়েছে। 

বৃহস্পতিবার ভোরে কাজ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন তিনি। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে দিল্লির সুভাষনগর এলাকায় টেম্পোর  ধাক্কায় রাস্তায় পড়ে যান তিনি। সেখান থেকে মাত্র ৫০০ মিটার দূরেই ছিল হাসপাতাল। 

সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, টেম্পোর চালক তাকে ধাক্কা মেরে গাড়ি থামিয়ে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করেন। পরে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। এ সময় এক রিকশা আরোহী নেমে আসে। ধারণা করা হচ্ছিল, মতিবুলের জীবন বাঁচাতে হয়তো সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবেন তিনি। কিন্তু মতিবুলের মোবাইল সেটটি হাতিয়ে নিয়ে দ্রুতই সটকে পড়েন তিনি। 

সকাল সাড়ে ৭টার দিকে পুলিশ যখন তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়, তখন মতিবুল আর বেঁচে নেই। পুলিশ এ ঘটনায় টেম্পো চালক ও মোবাইল হাতিয়ে নেয়া সেই রিকশা আরোহীকে খুঁজছে। তবে এখন পর্যন্ত কাউকে শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। 

সূত্র : এনডিটিভি।

Post a Comment