খাটের নিচে ফেলে রাখা ছিল ‘বিশ্বের বৃহত্তম’ মুক্তা


ফিলিপাইনের একজন জেলের ঘরে ‘বিশ্বের বৃহত্তম’ মুক্তার খোঁজ মিলেছে। এক দশক ধরে খাটের নিচে এটি ফেলে রেখেছিলেন তিনি। তবে এর আর্থিক মূল্যমান জানা যায়নি। ফিলিপাইনের স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এ খবর জানিয়েছে।

পুয়ের্তো প্রিন্সেসা শহরের পর্যটন বিভাগের প্রধান সিনথিয়া আমুরাও বলেন, মুক্তাটির ওজন ৩৪ কিলোগ্রাম (৭৫ পাউন্ড। এক অতিকায় সামুদ্রিক ঝিনুক থেকে এটি পাওয়া গেছে। ১০ বছর আগে এক দিন মাছ ধরার সময় সমুদ্রে ঝড় উঠলে ওই জেলের বইঠায় ঝিনুকটি আটকে যায়। এ জেলে সম্পর্কে নিজের ভাগনে বলে এই কর্মকর্তা জানান।

আমুরাও বলেন, মুক্তাটির দাম জানা না গেলেও অন্তত কোটি ডলার হতে পারে বলে তাঁর ধারণা। ১২ ইঞ্চি বাই ২৪ ইঞ্চি আয়তনের মুক্তাটি তাঁর ভাগনে ফিলিপাইনের পশ্চিমাঞ্চলীয় দ্বীপ পালাবনে নিজের কুঁড়েঘরের খাটের নিচে সৌভাগ্যের কবচ মনে করে লুকিয়ে রেখেছিলেন। এ বছরের জুলাইয়ে বাসা পাল্টানোর সময় তিনি মুক্তাটি তাঁর কাছে এনে লুকিয়ে রাখতে বলেন।

এএফপিকে এই পর্যটন কর্মকর্তা বলেন, ‘খাবার টেবিলের ওপর মুক্তাটি রাখার পর তা দেখে আমি বিস্মিত হয়ে যাই। আমি তাঁকে বলেছি, এর দাম না জানায় এটি লুকিয়ে রাখার কোনো মানে হয় না। বরং জনসমক্ষে এটি প্রদর্শন করা হোক।’

এরপর ভাগনের সম্মতিক্রমে পুয়ের্তো প্রিন্সেসা শহরের সিটি মিলনায়তনে গত সোমবার মুক্তাটি প্রদর্শনের জন্য রাখা হয়। সরকারি ফেসবুকেও এটির ছবি ছাড়া হয়েছে। মুক্তাটির মান ও দাম যাচাইয়ে রত্নবিশারদেরা এ শহরে আসবেন বলে আশা করছেন স্থানীয় কর্মকর্তারা।

এর আগে গত শতকের ৩০-এর দশকে ফিলিপাইনের পালাবন দ্বীপের সৈকতে ১৪ কিলোগ্রাম ওজনের মুক্তা ‘পার্ল অব আল্লাহ’র সন্ধান পাওয়া যায়। সেটিকেই এখন পর্যন্ত বিশ্বের বৃহত্তম মুক্তা বলে ধরা হয়ে থাকে। রত্নবিশারদেরা এর দাম নির্ধারণ করেছেন এক কোটি ডলার।

পুয়ের্তো প্রিন্সেসা শহরের তথ্য কর্মকর্তা রিচার্ড লিগাড সাম্প্রতিকতম এই মুক্তার সন্ধান পাওয়ার কথা নিশ্চিত করে বলেছেন, মুক্তার মালিক মুক্তাটি সরকারি কোষাগারে দান করার ব্যাপারে কোনো চুক্তি করেননি। তাই এখন পর্যন্ত এটি তাঁর সম্পত্তি হিসেবেই রয়েছে।


-লেটেস্টবিডিনিউজ

Post a Comment