**TRY FREE HUMAN READABLE ARTICLE SPINNER/ARTICLE REWRITER**

বসুন্ধরা সিটি চালু হতে আরও ৭ থেকে ১০ দিন



রাজধানীর পান্থপথে বসুন্ধরা সিটি শপিংমলে লাগা আগুন প্রায় দু’দিন পর পুরোপুরি নেভাতে পেরেছে ফায়ার সার্ভিস।




রোববার সকালে আগুন লাগার পর তা নিভিয়ে মঙ্গলবার পুরো শপিংমল কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণে দিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

তবে মঙ্গলবার পর্যন্ত বসুন্ধরা সিটি কর্তৃপক্ষ ব্যবসায়ীদের কাছে দোকান বুঝিয়ে দিতে পারেনি। আগুনে ক্ষতি হওয়া দোকানগুলো সংস্কার করে অন্তত ৭ থেকে ১০ দিন পর শপিংমলটি পুরোপুরি চালু করা সম্ভব হবে বলে দোকান মালিক সমিতি ও বসুন্ধরা সিটি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

আগুন লাগার কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রধান ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক অজিত রায় সমকালকে বলেন, তারা ভবনটি বসুন্ধরা সিটি কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করেছেন। তবে ফায়ারের একটি টিম সেখানে পর্যবেক্ষণ করবে। আগুন লাগার কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে উপপরিচালক বলেন, বিষয়টি উদ্ঘাটনে তদন্ত চলছে। আনুমানিক কিছু বলা যাবে না।

বসুন্ধরা সিটির ইনচার্জ টিআইএম লতিফুল হোসেন জানান, ‘সি’ ব্লকের ১১টি দোকান পুরোপুরি পুড়ে গেছে। এ ছাড়া ২২ থেকে ২৩টি দোকান আংশিক পুড়েছে। আগুন নেভাতে গিয়ে ওই ব্লকের আরও বেশ কয়েকটি দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব দোকান সংস্থার করে মার্কেট চালু করতে অন্তত ৭ থেকে ১০ দিন সময় লাগতে পারে।

এদিকে, মঙ্গলবার দুপুরে বসুন্ধরা সিটির কর্মকর্তাদের সঙ্গে দোকান মালিক সমিতির প্রতিনিধি দল ও ক্ষতিগ্রস্ত কয়েক ব্যবসায়ী পুড়ে যাওয়া দোকানগুলো পরিদর্শন করেছেন।

বেরিয়ে এসে তাদের মধ্যে কয়েক ব্যবসায়ী জানান, ‘সি’ ব্লকের পুড়ে যাওয়া দোকানগুলো থেকে এখনও আগুনের তাপ বেরোচ্ছে। সরাসরি ধোঁয়া দেখা না গেলেও আটকে থাকা ধোঁয়ায় চোখ জ্বলছে।

ফায়ার সার্ভিসের এক কর্মকর্তা বলেন, ভবনটি থেকে ধোঁয়া বের হওয়ার যত পথ থাকার কথা, তা নেই। কয়েকটি গ্লাস ভেঙে ধোঁয়া বের করা হলেও তা পর্যাপ্ত নয়। এ ছাড়া পুরো ভবনে কেন্দ্রীয়ভাবে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত (সেন্ট্রাল এসি) যন্ত্র থাকায় বিভিন্ন ফ্লোরেও এ ধোঁয়া ছড়িয়ে পড়ে।

দোকান মালিক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক ও সুরেশ্বর জুয়েলার্সের স্বত্ত্বাধিকারী মোরশেদ নওশাদ সমকালকে বলেন, তারা মার্কেটের পুড়ে যাওয়া অংশ পরিদর্শন করেছেন। বসুন্ধরা কর্তৃপক্ষ মার্কেটটি দ্রুত চালু করার জন্য কাজ করছে। বুধবার থেকে বিভিন্ন ফ্লোরের কিছু দোকান মালিককে মার্কেটের ভেতরে ঢুকতে দেওয়া হবে, যাতে তারা আগুন নেভাতে গিয়ে ছিটানো পানিতে ক্ষতি হওয়া মালামালগুলো উদ্ধার করতে পারেন। তবে পুরো মার্কেট চালু হতে আরও অন্তত সপ্তাহ খানেক সময় লাগবে।


-সমকাল

Post a Comment